তান্ত্রিক শ্বশুড়ের লালসার শিকার পুত্রবধু

প্রতীকী

স্টাফ রিপোর্টার,কলকাতা: তান্ত্রিক শ্বশুরের লালসার শিকার পুত্রবধূ৷ ঘটনাটি ঘটেছে নিউটাউনের প্রমোদগর এলাকায়৷ শ্বশুরের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পাশবিক অত্যাচারের অভিযোগ পুত্রবধূ৷ পলাতক অভিযুক্ত৷ ২০১৬ সালে পুলিশ তান্ত্রিক ভরত চন্দ্র মণ্ডলকে পকসো আইনে গ্রেফতার করেছিল৷ ধর্ষণেরই অভিযোগ ছিল তান্ত্রিকের বিরুদ্ধে৷ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে নিউটাউন থানার পুলিশ৷ যত দ্রুত সম্ভব তাকে গ্রেফতার করা হবে বলে জানাল পুলিশ৷

প্রেম করে বিয়ে৷ দীর্ঘদিন প্রেম করার পর সম্প্রতি নিউটাউনের প্রমোদগরের বাসিন্দা জগন্নাথ মন্ডলের সঙ্গে ক্যানিংয়ের বাসিন্দা বর্তমানে বাগুইআটির অর্জুনপুর এলাকায় বসবাসকারী তরুণীর বিয়ে হয়৷ স্বামী, শ্বশুড়, শাশুড়ী ও ননদকে নিয়ে ভালই ছিল গৃহবধু৷ কিন্তু বিয়ের চার মাসের মাথায় তান্ত্রিক শ্বশুরের লালসার  শিকার হতে হল তাকে৷

আরও পড়ুন: সুপ্রিম রায়ে আশার আলো বাংলার বাজি ব্যবসায়ীদের

গৃহবধূর অভিযোগ, মঙ্গলবার সকালে তার স্বামী, ননদ ও শ্বাশুড়ীকে বেড়াতে পাঠিয়ে দেন তান্ত্রিক শ্বশুর ভরত চন্দ্র মন্ডল। বাড়িতে তিনি আর শ্বশুড় ছিলেন। স্নান শেষে ঘরের মধ্যে যখন পোশাক পরিবর্তন করার সময়ই আচমকা ঘরের মধ্যে ঢুকে পড়েন শ্বশুড়। দরজা বন্ধ করে দিয়ে নানা অছিলায় ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। রাজি না হওয়ায় জোর করে মুখ চাপা দিয়ে ধর্ষণ ও পাশবিক অত্যাচার চালায় তান্ত্রিক শ্বশুর। এ কথা কাউকে না বলতে নানা প্রলোভন দেখানও হয় পুত্রবধূকে৷ তখনই কোনোও রকমে ঘর থেকে বেড়িয়ে যান অভিযোগকারিনী৷৷

এরপর নিউটাউন থানায় খবর দেওয়া হয়৷ পুলিশ গিয়ে গৃহবধূকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠায়৷ অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত তান্ত্রিক শ্বশুর ভরত চন্দ্র মন্ডলকে খোঁজছে পুলিশ৷

----
-----