নয়াদিল্লি: জল্পনা চলছিল গত কয়েকমাস ধরেই। মনোহর পারিক্কর গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী হয়ে যাওয়ার পর প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের পূর্ণাঙ্গ দায়িত্ব দেওয়া হয়নি কাউকে। অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে এই মন্ত্রক সামলাচ্ছিলেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। এই নিয়ে বিরোধীরাও সরব হয়েছিলেন একাধিকবার। জল্পনা ছিল এই পদে আসতে পারেন অমিত শাহ, আবার অনেকেই ভেবেছিলেন সুরেশ প্রভুকে দেওয়া হবে এই দায়িত্ব। সম্ভাব্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসেবে প্রকাশ জাভড়েকরেরও নামও আলোচিত হয়েছিল ৷ তবে সব জল্পনা উড়িয়ে এই মন্ত্রকের দায়িত্ব দেওয়া হল, নির্মলা সীতারামনকে। এর আগে মহিলা হিসেবে কেবলমাত্র ইন্দিরা গান্ধীই এই ওদের দায়িত্ব সামলেছেন। তবে এই প্রথম কেবলমাত্র প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিলেন কোনও মহিলা।

আরও পড়ুন: ভারতের আদানিদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ফাইটার জেট তৈরি করবে সুইডিশ ‘SAAB’

নির্মলা সীতারামনকে এই দায়িত্ব দেওয়া একটা বড়সড় চমক বলাই যায়। এর আগে শিল্প ও বাণিজ্য দফতরের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন তিনি। সেখান থেকে একলাফে এত গুরুত্বপূর্ণ একটা মন্ত্রক তাঁকে দেওয়ার নিশ্চয় কোনও কারণ আছে। এদিন সকালে রাষ্ট্রপতি ভবনে নির্মলা সীতারামনকে শপথ বাক্য পাঠ করান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ৷ তখনও তিনি কোন দফতরের দায়িত্ব পেতে চলেছেন তা স্পষ্ট হয়নি৷

নতুন দায়িত্ব পাওয়ার পর নির্মলা সীতারামন ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী মোদীকে। তিনি বলেন, ‘এত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। মোদী সবসময় মহিলা ক্ষমতায়নের পক্ষে। ‘ উল্লেখ্য, মন্ত্রিসভার পাঁচ গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর তালিকায় এতদিন একমাত্র মহিলা ছিলেন সুষমা স্বরাজ। এবার সেই পাঁচ মন্ত্রী তালিকায় নির্মলা সীতারামনকে দিয়ে দু’জন মহিলা এলেন। সামনেই ভারতের সঙ্গে একাধিক দেশের প্রতিরক্ষা চুক্তি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘আগামী ১০ বছরে ১৫০ কোটি ডলারের অস্ত্র কিনবে ভারত’

২০০৬ সালে বিজেপিতে যোগ দেন নির্মলা। ২০১৪ তে মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরেই মন্ত্রিসভায় যুক্ত হন তিনি। এর আগে বিজেপির মুখপাত্রের দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। মুখপাত্র হিসেবে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন তিনি। সংবাদমাধ্যমেও প্রায়শই দেখা যেত তাঁকে। তামিলনাড়ুর মেয়ে নির্মলা তিরুচিরাপল্লীর সীতালক্ষী রামস্বামী কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি নেন, এরপর জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি পান, তাঁর বিষয় ছিল অর্থনীতি। পরে ইন্দো-ইউরোপিয়ান টেক্সটাইল ট্রেড নিয়ে পিএইচডি করেন। একসময় ‘প্রাইসওয়াটার হাউস কুপার্স’-এর সিনিয়র ম্যানেজার ছিলেন তিনি। বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসেও কাজ করেন তিনি। একসময় জাতীয় মহিলা কমিশনের সদস্যও ছিলেন তিনি।

 

----
--