নয়াদিল্লি: লখনউয়ের এক হিন্দু-মুসলিম দম্পতিকে পাসপোর্টের ব্যাপারে সাহায্য করার পর থেকেই চরমতম ট্রোলিং-এর শিকার হন কেন্দ্রীয় বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। এই ইস্যুতে বিদেশমন্ত্রীর পাশে এসে দাঁড়ালেন সড়ক ও পরিবহন মন্ত্রী নীতিন গডকরি৷

মঙ্গলবার অশালীন ভাষায় সুষমাকে নেটদুনিয়ায় আক্রমণ করার তীব্র নিন্দা করেন তিনি৷ গডকরি বলেন সুষমার মতো মানুষকে অশালীন ভাষায় আক্রমণ করার বিরুদ্ধে কড়া প্রতিরোধ গড়ে তোলা উচিত৷ এটা দুর্ভাগ্যজনক৷ দেশের বেড়াজাল না মেনে উনি মানুষকে সাহায্য করেন৷ তারওপর একজন বর্ষীয়ান নেত্রী হওয়ায় এই অসম্মান তাঁর প্রাপ্য নয় বলে মন্তব্য করেন কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহন মন্ত্রী৷
তিনি আরও বলেন কারোর প্রতি অশালীন ভাষা ব্যবহার করার আগে, ভেবে দেখা উচিত, তাতে কতটা আগাত লাগতে পারে৷ নেটিজেনদের এই ধরণের ব্যবহার অনুচিত৷ মানুষের নিজেদের দায়িত্বজ্ঞান সম্পর্কে ওয়াকিবহাল হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি৷

Advertisement

এর আগে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এই প্রসঙ্গে বিদেশমন্ত্রীকে সমাবেদনা জানান৷ রাজনাথ বলেন, ট্রোলিং-এর ব্যাপারে আমি ওঁর সঙ্গে প্রথমে ফোনে কথা বলি, তার পরে দেখাও করি৷ কেন্দ্রের তরফ থেকে রাজনাথই প্রথম যিনি এই ব্যাপারে সুষমার পাশে দাঁড়িয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত বছর ঠিক একই ভাবে ট্রোলিং-এর শিকার হয়েছিলেন রাজনাথও। কাশ্মীরের মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তিনি বলেছিলেন, “কাশ্মীরিয়ত-এর সত্তা মানুষের মধ্যে রয়েছে।”

এদিকে রবিবার আরও একটি টুইট করেছিলেন সুষমা। সেখানে তিনি বলেন, “গণতন্ত্রে মতের অমিল হবেই। কারও সমালোচনা করুন, কিন্তু তা বলে অশ্লীল ভাষা ব্যবহার কোনো ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।”

----
--