গ্রেনেড হামলায় জিয়া পরিবারই জড়িত তাতে সন্দেহ নেই: হাসিনা

ঢাকা: ভয়াবহ ২১ অগস্ট গ্রেনেড হামলায় কোনওরকমে বেঁচে গিয়েছিলেন৷ ১৪ বছর পর সেই নাশকতার ঘটনা স্মরণে এনে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দাবি, সেদিনের ঘটনায় জড়িত জিয়া পরিবার৷ ফলে তাঁর অভিযোগ ঘিরে তপ্ত হতে শুরু করেছে রাজনৈতিক মহল৷ এদিকে দুর্নীতির মামলা জেলে রয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া৷

মঙ্গলবার সকালে ২১ আগস্ট গ্রেনেডে হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক স্মরণ অনুষ্ঠানে হাসিনা বলেন, এই হামলার ঘটনায় জিয়া পরিবার যে জড়িত ছিল, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। প্রকাশ্যে এরকম হামলার ঘটনা ঘটার কোনও দৃষ্টান্ত আমার মনে হয় নেই। সেদিন হামলাকারীরা যেভাবে এখানে এসে হামলা করল, স্বাভাবিকভাবেই সবাই বুঝতে পারল, কারা এর পেছনে রয়েছে।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকায় যে গ্রেনেড হামলা হয়েছিল তার মূল কেন্দ্র ছিল বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগ কার্যালয়৷ প্রকাশ্য সমাবেশে তৎকালীন বিরোধী নেত্রী শেখ হাসিনা ভাষণ দিচ্ছিলেন৷ তখনই পরপর গ্রেনেড চার্জ করা হয়৷ হামলায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেত্রী আইভি রহমান সহ ২৪ জনের মৃত্যু হয়৷ জখম হন অনেকে৷ ক্ষমতায় তখন বিএনপি ও জামাত ইসলামি জোট সরকার৷

- Advertisement -

সেদিনের ঘটনা স্মরণ করে শেখ হাসিনা বলেছেন, তখনকার সরকার আর পুলিশ লিপ্ত হয়েছিল প্রমাণ নষ্ট করার কাজে। হামলায় আহতদের সাহায্য করতে আওয়ামী লীগের অন্য নেতাকর্মীরা যখন ছুটে গেলেন, তখন পুলিশ তাদের ওপর টিয়ার শেল ছোড়ে। যে সমস্ত পুলিশ কর্মকর্তা সাহায্য করতে চেষ্টা করেছিল, বিএনপি সরকারের পক্ষ থেকে তিরস্কার করা হয়েছিল। তাদেরকে সরে যেতে বলা হয়েছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, যারা জাতির পিতাকে হত্যা করতে পারে, আগুন দিয়ে মানুষ মারতে পারে, নারী ও শিশু হত্যা করতে পারে; যারা প্রকাশ্য দিবালোকে বিরোধী দলের র‌্যালিতে গ্রেনেড হামলা করতে পারে, তারা কখনো কোনো দেশের কল্যাণ ও মঙ্গল করতে পারে না।

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের আগে বিএনপি-জামায়াত জোটের কেউ যাতে আওয়ামী লীগে প্রবেশ করতে না পারে, সে বিষয়ে দলের নেতাকর্মীদের সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোটের যারা ঘাপটি মেরে থাকে, তারা অনেকে আমাদের দলের সাথে মিশে যায়। এদের যেন কেউ দলে না টানে।

Advertisement
---