সুবিধার জন্য হাতকাটা কুর্তা পড়ি, ডিজাইনারের হাত নেই: মোদী

নয়াদিল্লি: শিক্ষক দিবসের প্রাক্কালে পড়ুয়াদের সঙ্গে আলাপচারিতায় মেতে উঠলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর পড়ুয়াদের সঙ্গে এই আলাপচারিতার মাঝেই উঠে এল প্রধানমন্ত্রীর ফ্যাশন দচেতনতার বিষয়টিও। এক পড়ুয়া মোদীর প্রশংসা করেন তাঁর ফ্যাশন সেন্সের জন্য। তখনই প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট করে দেন, “আমার কোনও ব্যক্তিগত ফ্যাশন ডিজাইনার নেই। অনেকেই ভাবে আমার বুঝি কোনও ব্যক্তিগত ডিজাইনার রয়েছে। কিন্তু বিশ্বাস করো, আমি সাধারণ পোশাক পরতেই ভালবাসি।” মোদীকে এদিন ভারতীয় পোশাকের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসডর বলে দাবি করে ছাত্ররা।

মোদীকে এক পড়ুয়া প্রশ্ন করে, আপনার মোদী কুর্তা এত জনপ্রিয়তা পেল কী করে?

উত্তরে স্মিত হেসে মোদী বলেন,  “আমি খুব সাধারণ এক পরিবার থেকে উঠে এসেছি। গুজরাতের আবহাওয়া খুব একটা ঠাণ্ডা নয়। তাই আমি কুর্তা-পাজামা পরতেই ভালবাসতাম। নিজের হাতে পোশাক ধুতে হত বলে আমি হাতা খুলে স্লিভলেস করে নিয়েছিলাম। এতে কাজের সুবিধা হত।”

- Advertisement -

৬৪ বছর বয়সী মোদী আরও বলেন, “আমার কাছে পোশাক ইস্ত্রি করার পয়সা ছিল না। পোশাক পরিষ্কার দেখানোর জন্য আমি চারকোল দিয়ে আমার কুর্তায় বিন্দু এঁকে দিতাম। ক্লাস শেষ হলে আমি আমার কেডস সাফ দেখানোর জন্য তার উপর চক ঘষতাম।” প্রধানমন্ত্রী এদিন বলেন, “আমার কিন্তু কোনও ডিজাইনার নেই। আজও নেই। তবে আমি বিশ্বাস করি, অনুষ্ঠান বুঝে পোশাক পরা উচিত।”

পাশাপাশি, শিক্ষক দিবসের প্রাক্কালে সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ-এর নামে একটি বিশেষ কয়েনও প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী৷

সঙ্গে পড়ুন- শিক্ষক দিবসের আগে ‘মোদী স্যার’-এর ক্লাস 

এবারের শিক্ষক দিবস উপলক্ষে সারা দেশের প্রায় ৮০০ পড়ুয়া এবং ৬০ জন শিক্ষককে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সামনা সামনি অথবা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথা বলার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছিল৷ তাই শিক্ষক দিবসের প্রাক্কালে শিক্ষকদের বিষয়ে নিজের জীবনের উপলব্ধি প্রকাশ করেন নরেন্দ্র মোদী৷ বলেন, তাঁর শিক্ষক হওয়ার ইচ্ছে ছিল৷ কারণ এই পেশাটি সমস্ত পেশা থেকে আলাদা৷এর উপলব্ধি অন্যরকম৷প্রয়াত প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি এপিজে আবদুল কালামের জীবনের আদর্শের কথাও তুলে ধরেন মোদী৷ বলেন, মৃত্যুর আগে পর্যন্ত তিনি শিক্ষকতা করে গিয়েছেন৷শুধু তাই নয়, এখনকার প্রজন্ম রাধাকৃষ্ণণকে দেখেনি৷ কিন্তু, তারা আবদুল কালামকে দেখেছে৷ প্রয়াত রাষ্ট্রপতি কালাম সব সময়ই একজন শিক্ষক হিসেবে দেশের সাধারণ মানুষকে পথ দেখিয়েছেন৷

কোন জিনিষ আপনার জীবনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে ? তেলাঙ্গানার এক ছাত্রের প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ”আমার সব সময় পড়াশোনার বিষয়ে আগ্রহ ছিল এবং শিক্ষকদের সঙ্গে যোগাযোগ থাকত সব সময়৷ শুধু তাই নয়, আমি ছোটবেলা থেকে স্বামী বিবেকানন্দের বই পড়েছি৷ যা আমার যৌবন গঠনে অনেক সাহায্য করেছে৷”

Advertisement ---
---
-----