পঞ্চায়েতের কাজ নিয়ে বচসা, মাথাভাঙায় তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল

স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: ফের তৃণমূল কংগ্রেসের গোষ্ঠী কোন্দল মাথাভাঙার শিকারপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে৷ এদিন পঞ্চায়েতের কাজ পাওয়া যাচ্ছেনা এই অভিযোগ তুলে যুব তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থিত দুই নির্দল পঞ্চায়েত সদস্য গ্রাম পঞ্চায়েতের সামনে ধর্নায় বসে যায়৷

তাঁদের অভিযোগ, একই দল করলেও তাঁদের প্রতি বিমাতৃসুলভ আচরণ করছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেসের বক্তব্য গ্রাম পঞ্চায়েতের উন্নয়নের কাজ বন্ধ করতেই কিছু দুষ্কৃতী এই কাজ করছে।

মাথাভাঙ্গা ১ নম্বর ব্লকের শিকারপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন পর্ব থেকেই বারে বারে উত্তপ্ত হয়েছে এই গ্রাম পঞ্চায়েত৷ ১৭ টি আসন বিশিষ্ট এই গ্রাম পঞ্চায়েতের ১১ টি তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে৷ চারটি বিজেপির এবং দুটি আসন পায় যুব তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থিত নির্দল।

বোর্ড গঠন হওয়ার পর থেকেই তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থিত নির্দল প্রার্থীরা অভিযোগ করেন৷ তাঁদের এলাকায় কোন প্রকল্পের কাজ হচ্ছে না৷ এই অভিযোগে মঙ্গলবার গ্রাম পঞ্চায়েতের সামনে ধর্নায় বসে গেল দুই নির্দল গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য। দীর্ঘক্ষণ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান প্রতিমা বর্মণকে তাঁর ঘড়ে আটকে রাখে৷ পরে পুলিশ গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে৷

এদিন যুব তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থিত নির্দল গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য গৌতম বর্মণ বলেন, “আমরা একই দল করি৷ তবুও আমাদের কোন কাজ দেওয়া হচ্ছেনা৷ তৃণমূল কংগ্রেসের কিছু নেতার নির্দেশে আমাদের উন্নয়নমূলক কাজ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে৷ এর প্রতিবাদেই এই ধর্না।’’

এদিকে এই ঘটনা নিয়ে স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ক্ষিতীশ চন্দ্র বর্মণের দাবি, কিছু দুষ্কৃতী এলাকায় উন্নয়ন বন্ধ করে দেওয়ার জন্য এই সব কাজ করছে৷ এরা তৃণমূল কংগ্রেসের কেউ নয়৷ এরা দলের কেউ হলে এই ভাবে উন্নয়ন বন্ধ করার কাজ করত না।

----
-----