যে কোনও সময় আছড়ে পড়বে ‘ফ্লোরেন্স’, জারি জরুরি অবস্থা

রালি: আছড়ে পড়তে পারে ফ্লোরেন্স ঝড়৷ সতর্ক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যালোরিনা রাজ্য৷ প্রদেশ জুড়ে জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূলে এই ঝড় তাণ্ডব চালাতে পারে, এমনই জানানো হয়েছে স্থানীয় আবহাওয়া দফতরের পক্ষ থেকে৷

আটলান্টিক মহাসাগরের ওপর দিয়ে বয়ে আসা এই সামুদ্রিক ঝড় আছড়ে পড়তে চলেছে শনিবার রাতে অথবা রবিবার কোনও সময়ে৷ নর্থ ক্যারোলিনা প্রদেশের ন্যাশনাল হ্যারিকেন সেন্টার জানাচ্ছে বারমুডার কাছে এই ঝড় শক্তি সঞ্চয় করেছে৷ শুক্রবার এই ঝড় দাপট দেখিয়েছে ব্রিটিশ আইল্যাণ্ড টেরিটোরিতে৷ বড় বড় ঢেউ আছড়ে পড়েছে সমুদ্র উপকূলে৷ বইছে ঝোড়ো হাওয়া৷ ইতিমধ্যেই সতকর্তা জারি করা হয়েছে সেখানেও৷

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস বলছে, ফ্লোরেন্স ঝড়ের দাপট কবে কাটবে তা নিয়ে সঠিক তথ্য মিলছে না৷ তবে অনুমান আগামি সপ্তাহের শেষের দিকে কিছুটা শক্তিক্ষয় করে দাপট কমবে ফ্লোরেন্সের৷ সমুদ্র উপকূল থেকে তা ধীরে ধীরে স্থলভাগের দিকে ঢুকবে৷ তবে ঝোড়ো হাওয়ার প্রকোপ তখন অনেকটাই কম হবে বলে মনে করছেন আবহবিদরা৷

- Advertisement -

নর্থ ক্যারোলিনার গভর্নর রয় কুপার জানিয়েছেন গোটা প্রদেশে কড়া সতর্কতা জারি করা হয়েছে৷ শুক্রবার থেকে আপদকালীন পরিস্থিতির জন্য তৈরি রয়েছে প্রশাসন৷ স্থানীয় বাসিন্দাদের প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে৷ সমুদ্র তীরবর্তী অঞ্চলের বাসিন্দাদের নিরাপদ জায়গা সরে যাওয়ারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

কুপার বলেছেন এই ঝড় হারিকেনের আকারে আছড়ে পড়তে চলেছে৷ সব ধরণের পরিস্থিতির জন্য তৈরি রয়েছে প্রশাসন৷ দক্ষিণ ক্যারোলিনার এমার্জেন্সি ম্যানেজমেন্ট ডিভিশনকে সতর্ক করা হয়েছে৷ হ্যারিকেন বিশেষজ্ঞ রোবি বার্গ জানান, এমনিতেই হ্যারিকেনের আকারের ঝড় গুলির প্রকৃতি ও শক্তি সম্পর্কে আগে থেকে কিছু বলা যায় না৷ তবে ফ্লোরেন্স ঝড়টি যে উপকূল অঞ্চলে তাণ্ডব চালাবে সে ব্যাপারে নিশ্চিত৷

আবহাওয়া দফতর জানাচ্ছে ফ্লোরেন্স ঝড়টি ঘন্টায় ২১০ কিমি বেগে আছড়ে পড়তে চলেছে৷ ইতিমধ্যেই আফ্রিকা উপকূলে দুটি নিম্নচাপ বলয় তৈরি হয়েছে৷ সেকানে থেকে ট্রপিক্যাল ঝড়ের উদ্ভব হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ শুক্রবার পর্যন্ত ফ্লোরেন্সের সর্বোচ্চ গতি ছিল ১০৫ কিমি প্রতি ঘন্টা৷

Advertisement
-----