যুদ্ধ শুরু করলে উত্তর কোরিয়াকে পুরোপুরি ধ্বংস করা হবে: নিকি হ্যালি

ওয়াশিংটন: যুদ্ধে জড়ালে উত্তর কোরিয়াকে ‘সম্পূর্ণ’ ধ্বংস করে ফেলা হবে৷ বুধবার পিয়ং ইয়ং-এর পরমাণু হুমকির উত্তরে এমনই হুঁশিয়ারি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের। পিয়ংইয়ংয়ের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জেরে এই হুমকি রাষ্ট্রসঙ্ঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালির৷ বুধবার রাতে নিরাপত্তা পরিষদের এক বৈঠকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হুমকিরই পুনরাবৃত্তি করেন নিকি।

হ্যালি বলেন, উত্তর কোরিয়ার প্রধান বুধবার এমন একটি পদক্ষেপ নিয়েছেন, যা বিশ্বকে যুদ্ধের আরো কাছাকাছি নিয়ে গেছে। তাই যদি যুদ্ধ বাঁধে, তাহলে উত্তর কোরিয়াকে পুরোপুরি ধ্বংস করে ফেলার ক্ষমতা রাখে আমেরিকা, আর তাতে তারা পিছপাও হবে না৷
উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে বিশ্বের প্রতিটি দেশকে আহ্বান জানান তিনি। স্পষ্ট ভাষায় তিনি বলেন, চিনকে সবার আগে এই কাজ শুরু করতে হবে। রাষ্ট্রসঙ্ঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, তাদের আশা চিন এব্যাপারে ইতিবাচক পদক্ষেপ নেবে৷ হ্যালি আরও জানান, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে টেলিফোনিক বার্তালাপ হয়েছে চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের৷ ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ায় জ্বালানি সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়ার জন্য চিনকে আহ্বান জানিয়েছেন।’

অন্যদিকে বেজিং সূত্রে খবর, উত্তর-পূর্ব এশিয়ায় শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে তারা বদ্ধপরিকর৷ সেইসঙ্গে চিন কোরীয় উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করতে চায় ইচ্ছুক বলেও জিনপিং উল্লেখ করেছেন। এদিন নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে চিন ও রাশিয়ার রাষ্ট্রদূতরা উত্তর কোরিয়াকে ধৈর্য রাখার আহ্বান জানান। তারা বলেন,যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পিয়ংইয়ং-এর শত্রুতা কূটনৈতিক উপায়ে সমাধান করতে হবে।

প্রায় দু মাসের বিরতির পর উত্তর কোরিয়া বুধবার সবচেয়ে শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায়। আন্তর্মহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রটি ভূপৃষ্ঠ থেকে ৪,৫০০ কিলোমিটার উচ্চতায় ওঠার পর নিক্ষেপের স্থান থেকে ৯৬০ কিলোমিটার পূর্বে জাপান সাগরে গিয়ে পড়ে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ক্ষেপণাস্ত্রটি ওপরের দিকে নিক্ষেপ না করে সোজাসুজি নিক্ষেপ করলে এটি দিয়ে ১৩,০০০ কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানা সম্ভব। পিয়ংইয়ং দাবি করেছে, এ পরীক্ষার মাধ্যমে গোটা যুক্তরাষ্ট্র তাদের ক্ষেপণাস্ত্রের আওতায় চলে এসেছে।

Advertisement
---
-----