ফাইল ছবি

শিলং: মেঘের দেশে গিয়ে শেষের কবিতা লিখেছিলেন রবীন্দ্রনাথ৷ সেই দেশ থেকেই এবার বাঙালিদের বিতাড়ন প্রক্রিয়া শুরু হতে চলল৷ মেঘালয়ের অন্যতম সংগঠন খাসি স্টুডেন্ট ইউনিয়ন (কেএসইউ) দাবি তুলছে, অবিলম্বে রাজ্য থেকে চলে যেতে হবে ‘বিদেশি’-দের৷ মাইকিং করে কেএসইউ এমন বার্তা দেওয়ায় অসম-মেঘালয় আন্তঃরাজ্য সীমান্ত এলাকায় প্রবল উত্তেজনা ছড়িয়েছে৷ পরিস্থিতি সামাল দিতে নামানো হয়েছে বিশেষ পুলিশ বাহিনী৷ রাজধানী শিলংয়েও জারি হয়েছে সতর্কতা৷

জাতীয় নাগরিক পঞ্জীকরণের সর্বশেষ খসড়া তালিকায় অসমের ৪০ লক্ষের বেশি মানুষকে অবৈধ নাগরিক হিসেবে দেখানো হয়েছে৷ সেই রাজ্যে চরম উত্তেজনা, যার রেশ ছড়িয়েছে রাজধানী দিল্লিতেও৷ এবার এনআরসি চালুর দাবি ও ‘বাংলাভাষী অনুপ্রবেশকারী’ হটানো ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠতে শুরু করল মেঘালয়৷ এখানে থাকা বহু বাঙালি পরিবার ভীত৷ শিলংয়ে আছেন এমন বাঙালিরাও আশঙ্কিত৷ তাঁরা নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন৷

Advertisement

কেএসিউ জানিয়েছে, কোনও অবস্থাতেই অসম থেকে বিতাড়িত হয়ে আসা উদ্বাস্তুদের মেঘালয়ে স্থান দেওয়া হবে না৷ ইনার লাইন পারমিট আছে যাদের তাদেরও চোখে চোখে রাখা হবে৷ এদিকে অসমের নাগরিকপঞ্জী খসড়া প্রকাশের পরই উত্তর পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন রাজ্যের সরকার সতর্ক৷ মেঘালয় সরকার বিশেষ বৈঠক ডেকেছে মন্ত্রিসভার৷ সর্বত্র শান্তি বজায় রাখার আহ্বান জানানো হয়েছে৷

এনআরসি জারি করার আহ্বান জানিয়েছে খাসি ছাত্র সংগঠনটি৷ তাদের যুক্তি, বহু মানুষ এই রাজ্যে অবৈধভাবে বসবাস করে৷ তাদের হটাতে হবেই৷ এর জন্য সরকারকে পদক্ষেপ নিতে হবে৷

----
--