বোঝ-কান্ড! জীবিত থেকেও সরকারি খাতায় মৃত বৃদ্ধ

বাসুদেব ঘোষ, সিউড়ি: তিনি মরেননি, তিনি আজও বেঁচে রয়েছেন৷ তবে নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে গিয়ে তাঁর লেগে গেল আট আটটি বছর৷ মঙ্গলবার বিডিও-র কাছে সশরীরে হাজির হয়ে তিনি প্রমাণ করলেন তিনি মরেননি৷

যাঁকে নিয়ে এই আলোচনা তিনি হলেন নলহাটি ২ নম্বর ব্লকের পূর্ব গোপালপুর গ্রামের ৭০ বছরের বৃদ্ধ সুধা সিন্ধু মণ্ডল৷ তাঁর দুই ছেলে মহাদেব মণ্ডল এবং সহদেব মণ্ডল৷ তবে আলাদা থাকেন সকলেই৷ স্ত্রী শান্তিবালা মণ্ডলকে নিয়ে পৃথক থাকেন সুধা সিন্ধুবাবু৷ বার্ধক্য ভাতার উপর নির্ভর করেই চলত বৃদ্ধ বৃদ্ধার সংসার৷ তবে সুধা সিন্ধুবাবুর স্ত্রীও একবার বার্ধক্য ভাতা পেয়েছেন বলে জানালেন৷ কিন্তু হঠাৎই তা বন্ধ হয়ে যায়৷ আর এর কারণ শুনলে আপনার চক্ষু চড়ক গাছ হয়ে যাবে৷

অভিযোগ, টানা আট বছর ধরে তিনি বার্ধক্য ভাতা পাচ্ছেন না৷ তার কারণ আট বছর ধরে তিনি সরকারি খাতায় মৃত হয়ে গিয়েছেন৷ প্রশাসন সূত্রে খবর মিলেছে, ২০১০ সালের নভেম্বর মাস পর্যন্ত বার্ধক্য ভাতা পেয়েছেন সুধা সিন্ধু মণ্ডল৷ তারপর থেকে সরকারি খাতায় তিনি হয়ে গিয়েছেন মৃত৷ ভাতা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় খুবই কষ্টের মধ্যে কাটছিল তাঁদের জীবন৷ তারপর নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে বিডিও অফিস হন্যে হয়ে ঘুরতে শুরু করলেন সুধা সিন্ধুবাবু৷

- Advertisement -

সুধা সিন্ধুবাবু বলেন, ‘‘যে ভাতা পাচ্ছিলাম তাতেই কোনও রকমে দুটো পেট চলে যাচ্ছিল আমাদের৷ কিন্তু সরকারি খাতায় মৃত ঘোষণা হয়ে যাওয়ায় সে ভাতা বন্ধ হয়ে যায়৷ বিডিও অফিসে ঘোরাঘুরি করে জানতে পারলাম আমি আর বেঁচে নেই৷ তাই ভাতাও বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷’’ নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে নলহাটি ২ ব্লকের বিডিও রাজীব সংকর গৌতমের কাছে হাজির হন তিনি৷ সরকারি খাতায় যে মানুষটি মৃত হয়ে গিয়েছেন অনেকদিন আগেই তাঁকে সশরীরে দেখে কিছুটা হতবাক হয়ে যান বিডিও সাহেব৷

তবে শেষ রক্ষা হয়েছে৷ বিডিও সাহেবের উদ্যোগেই ফের আট বছর পর তাঁর ভাতা চালু হয়৷ এই প্রসঙ্গে বিডিও বলেন, ‘‘আমি নলহাটি ২ ব্লকে জয়েন করার পর বিষয়টি আমার নজরে আসে৷ তখনই সিদ্ধান্ত নিই বৃদ্ধকে ভাতা পাইয়ে দিতে হবে৷ জেলা থেকে রাজ্য একের পর এক চিঠি পাঠাতে থাকি৷ দিন কয়েক আগে জেলা থেকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয় সুধা সিন্ধু মণ্ডলের ভাতা ফের চালু করা হল৷’’ কিন্তু তাঁর বেঁচে থাকা আট বছরের ভাতা কি হবে, সে টাকা কি করে পাবেন তিনি? এই বিষয়ে বিডিও বলেন, ‘‘এই ব্যাপারে আমরা জেলাকে চিঠি লিখব৷ উনি যাতে সেই টাকা পান সেই চেষ্টাও আমরা করব৷’’

Advertisement
---