সুভাষ বৈদ্য,কলকাতা: নকল সোনার বুদ্ধ মূর্তি দেখিয়ে প্রতারণার অভিযোগে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ বিহারের দুর্নীতি দমন শাখা ও নিয়ন্ত্রণ কমিটি এবং এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ যৌথ ভাবে অভিযান চালিয়ে প্রতারককে গ্রেফতার করে৷ ধৃতের নাম ইলিয়াস মিস্ত্রি৷ তাকে বুধবার রাতে হাড়োয়া খাল এলাকা থেকে ধরা হয়৷ অভিযুক্তের কাছ থেকে সোনার বুদ্ধ মূর্তি উদ্ধার করেছেন তদন্তকারীরা৷

জানা গিয়েছে, এই সোনার বুদ্ধ মূর্তি দেখিয়ে এক ব্যক্তির সঙ্গে প্রতারণা করে দশ হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে ইলিয়াসের বিরুদ্ধে৷ তখন ওই প্রতারিত ব্যক্তি শুভজিৎ দাস ও অমিত সিং নামে বিহারের দুর্নীতি দমন শাখার অফিসারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন৷ যার ভিত্তিতে তাঁরা রাজারহাট থানায় অভিযোগ দায়ের করেন৷

Advertisement

পুলিশের কাছে অভিযোগে তারা জানান, কেএলসি থানা ও নিউ টাউন থানা এলাকার মাঝে সিক্স লেন এলাকায় এক গাড়ি চালক ও খালাসির কাছে যায় ইলিয়াস৷ তাদেরকে সোনার বুদ্ধ মূর্তি দেখিয়ে বলে এই রকম আরও সোনার মূর্তি তার কাছে আছে৷ গাড়ি চালক ও খালাসিকে সেই মূর্তি কেনার জন্য প্রভাবিত করে৷ ইলিয়াসের ফাঁদে পা দিয়ে খালাসি দশ হাজার টাকা দেয়৷ তাঁকে বলা হয় নির্দিষ্ট সময়ে ওই সোনার মূর্তি দিয়ে দেওয়া হবে৷

কিন্তু সেই সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরেও মূর্তি না মেলায় ইলিয়াসের সঙ্গে যোগাযোগ করেন ওই ব্যক্তি৷ কিন্তু ইলিয়াসের টিঁকি খুঁজে না পেয়ে ওই দুই অফিসারের সাহায্য চান৷ যার ভিত্তিতে রাজারহাট থানায় অভিযোগ দায়ের হয়৷ পরে বিহারের দুর্নীতি দমন শাখার সঙ্গে অভিযান চালায় এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ৷ সেই অভিযানে ধরা পড়ে ইলিয়াস৷

জানা গিয়েছে, ইলিয়াসকে ধরতে তার দুর্বলতাকে কাজে লাগায় তদন্তকারীরা৷ অফিসাররা তাকে মূর্তি কেনার টোপ দেয়৷ পুলিশের ফাঁদে পা দেয় ইলিয়াস৷ এরপরই হাড়োয়া খাল এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়৷ ইলিয়াসের কাছ থেকে ৭ ইঞ্চির উচ্চতা বিশিষ্ট ও ১ কেজি ২০০ গ্রাম ওজনের পিতলের বুদ্ধ মূতি উদ্ধার করা হয়েছে৷ ধৃতদের আজ আদালতে তোলা হবে৷

আদালতে ধৃতের পুলিশি হেফাজতের আবেদন করা হবে৷ কারণ এর সঙ্গে আরও বড় কোনও জড়িত আছে বলে তদন্তকারী অফিসারদের অনুমান৷ সেই চক্রের তল্লাশিতে ইলিয়াসকে পুলিশি হেফাজতে নিয়ে জিঞ্জাসাবাদ করতে চান তাঁরা৷

----
--