মে মাসে পঞ্চায়েত ভোট চাইছে না বিরোধীরা

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কোনওরকম সমাধান সূত্র ছাড়াই বৃহস্পতিবার শেষ হল নির্বাচন কমিশনের ডাকা সর্বদলীয় বৈঠক৷ এদিন আসন্ন ত্রিস্তর পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছিল রাজ্য নির্বাচন কমিশন৷ সেখানেই কোনও ঐক্যমত্যে পৌঁছতে পারেনি কমিশন ও রাজনৈতিক দলগুলি৷

কমিশনের একটি সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, এর জেরে পঞ্চায়েত নির্বাচনের নির্ঘণ্ট প্রকাশের বিষয়টি কার্যত ঝুলেই রইল৷ শেষমেশ সব জল্পনাকে সত্যি করে মে মাসের প্রথম দু’সপ্তাহের মধ্যেই কি পঞ্চায়েত ভোট শেষ হবে, সেই সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া গেল না বলেই ওই সূত্রের দাবি৷

আরও পড়ুন: ভিন রাজ্যের মোবাইল পাচার চক্রকে গ্রেফতার করল পুলিশ

- Advertisement -

তবে নবান্নের একটি সূত্রের বক্তব্য, রাজ্য সরকার পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিনক্ষণ প্রায় ঠিকই করে ফেলেছে৷ পয়লা মে থেকে ১৫ মে-র মধ্যে ভোট প্রক্রিয়া শেষ করতে তৎপর রাজ্য সরকার৷ তিন দফায় ভোট করা হবে বলে রাজ্য সরকার ঠিক করে ফেলেছে৷ সেই হিসেবে ২ এপ্রিল বিজ্ঞপ্তি জারির সম্ভাবনাও রয়েছে৷ রাজ্যের এই পরিকল্পনা প্রস্তাব আকারে কমিশনের কাছে পাঠানো হয়েছে৷ তবে কমিশনের তরফে এ নিয়ে এখনও কেউ কিছু জানাননি৷

যদিও বুধবার সন্ধ্যা থেকেই মে মাসে রাজ্য সরকারের ভোট প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার বিষয়টি নবান্নের একটি সূত্র থেকে ছড়িয়ে যায়৷ সেই সংবাদ লেখা হয় kolkata24x7-এ৷ ফলে বৃহস্পতিবারের সর্বদলীয় বৈঠকের আলোচনায় উঠে আসে মে মাসের ভোটের বিষয়টি৷ এদিনের বৈঠকে বিজেপির জয়প্রকাশ মজুমদার, সিপিএমের সুজন চক্রবর্তী, তৃণমূলের সুব্রত বক্সি, কংগ্রেসের ঋজু ঘোষাল-সহ একাধিক রাজনৈতিক নেতা উপস্থিত ছিলেন৷

আরও পড়ুন: নির্মল জেলার সম্মান পেল বীরভূম

প্রশাসন সূত্রে খবর, বৈঠকে মে মাসে ভোট করা নিয়ে তীব্র আপত্তি ওঠে বিরোধীদের তরফে৷ কারণ, কোনও রাজনৈতিক দলের কাছে প্রস্তুতির সুযোগ সেভাবে আর নেই৷ তার উপর এখন উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা চলছে৷ ফলে মাইক বাজিয়ে প্রচার সম্ভব নয়৷ উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হবে ১১ এপ্রিল৷ তার পর পুরোদমে প্রচারের সুযোগ থাকবে৷ কিন্তু ততদিনে চলে যাবে অনেকটা সময়৷ তাই সমস্ত বিরোধী রাজনৈতিক দলই মে মাসের ভোটের বিরোধিতা করেছেন বলে জানা গিয়েছে৷ এছাড়া বিরোধীরা কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট করানোর প্রস্তাব দিয়েছে৷

এ বিষয়ে কমিশনের অবস্থান এখনও স্পষ্ট না হলেও বৈঠকে তৃণমূলের তরফে বিরোধীদের দাবির বিরোধিতা করা হয়৷ ফলে কোনওরকম ঐক্যমত্য ছাড়াই শেষ হয়ে যায় বৈঠক৷

আরও পড়ুন: অ্যাডমিট কেলেঙ্কারিতে বিপাকে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ

Advertisement
---