চিনাদের ভারতে অনুপ্রবেশ এক বছরে দ্বিগুণ হয়েছে: সেনা রিপোর্ট

নয়াদিল্লি: গত বছর চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের তিক্ততা চরম পর্যায়ে পৌঁছে যেতে দেখা গিয়েছে। এই ২০১৭তেই ৭২ দিন ধরে মুখোমুখি দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে দুই দেশের সেনাবাহিনীকে। ডোকলাম সংঘাত শেষ হওয়ার পরও ফের সীমান্তে চিন সেনাকে ভিড়তে দেখা গিয়েছে। দিনকয়েক আগেও অরুণাচলের সীমান্ত পেরিয়ে বেশ কিছু চিনাকে ভারতে ঢুকে রাস্তা তৈরির কাজ করতে দেখা গিয়েছে। সেটাও ডিসেম্বরের শেষের দিকের ঘটনা।

এবার সেনাবাহিনী যে রিপোর্ট কেন্দ্রকে দিয়েছে, তা থেকেই স্পষ্ট যে চিন কিভাবে ভারতের দিকে ক্রমশ এগিয়ে আসছে। দেখা গিয়েছে ২০১৭ তে সীমান্ত পেরনোর ঘটনা দ্বিগুণ হয়েছে। ২০১৬ তে ২৭১ বার সীমান্ত লঙ্ঘন করার চেষ্টা হয়েছিল চিনের তরফে। আর ২০১৭ তে সেই সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে ৪১৫ হয়েছে। এই সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় চিন্তার ভাঁজ পড়েছে ভারতের গোয়েন্দাদের কপালে।

ভারত-চিন সীমান্ত অর্থাৎ লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলে দুটি বিতর্কিত অংশ রয়েছে, যেখানে ঠিক কোথা দিয়ে সীমান্ত গিয়েছে তা স্পষ্ট নয়। বিতর্কিত জায়গাগুলির মধ্যে অন্যতম চুমার, ডেপসাং, ডেমচক, বারাহোতি, সামুদোরোং চু।

- Advertisement -

সম্প্রতি এমন খবর প্রকাশ্যে আসে যে, সীমান্ত লঙ্ঘন করে ভারতে প্রবেশ করেছে চিন৷ হাতে নাতে প্রমাণও পাওয়া যায়৷ অরুণাচল প্রদেশ সীমান্তে ম্যাকমাহন লাইনের কাছে একটি গ্রামে রাস্তা তৈরি করছে চিনা সেনা৷ এমনটাই দাবি করেন স্থানীয় বাসিন্দারা

গত ২৬ ডিসেম্বর এই ঘটনা ঘটে। এটা চিনের পরিকল্পিত নয় বলেই জানাচ্ছেন গোয়েন্দারা। সিয়াং জেলার বিসিং-এ দুই দেশের কোনও নিশ্চিত নিয়ন্ত্রণরেখা নেই। ওই অংশে ঢুকে ৬০০ মিটার রাস্তা তৈরি করে ফেলেছিল চিনের শ্রমিকেরা। পরে আইটিবিপি জওয়ানেরা সেখানে উপস্থিত হলে তারা জিনিসপত্র ফেলে পালিয়ে যায়।

Advertisement ---
---
-----