দেড় বছর আগের ঘটনায় কর্মীকে মারধর মালিকের

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: এক কর্মচারীকে গুম করে দেওয়ার অভিযোগ উঠল ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে৷ ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার দমদমের অমরপল্লীতে৷ নিখোঁজ কর্মচারীর নাম পিন্টু মন্ডল৷ অভিযুক্ত ব্যবসায়ীর নাম রঞ্জন দাস ওরফে ভীষ্ম৷

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, ১০ আগস্ট পিন্টুকে লাইট পোস্টে বেঁধে রেখে মারধর করা হয়। অজ্ঞান হয়ে গেলে পুকুরে চুবিয়ে দেয় অভিযুক্ত ব্যবসায়ী রঞ্জন। এরপর থেকে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে যায় পিন্টু। এই ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার দুপুরে অভিযুক্ত ব্যবসায়ী রঞ্জনের অমরপল্লির বাড়িতে বিক্ষোভ দেখায় স্থানীয় বাসিন্দারা।

আরও পড়ুন: মেডিক্যালের চিকিৎসকের ‘ভুল’, শিশুর বাঁ পায়ের বদলে ডান পায়ে অস্ত্রোপচার

- Advertisement -

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, দেড় বছর আগে রঞ্জন বাবুর বাড়িতে একটি চুরির ঘটনা ঘটেছিল৷ সেই ঘটনায় পিন্টুকে অভিযুক্ত করে ১০ আগস্ট সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রঞ্জন দাস পিন্টু মণ্ডলকে অমরপল্লির লাইট পোস্টে বেঁধে রেখে মারধর করে। জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাঁকে লাইটপোস্ট সংলগ্ন পুকুরে চুবিয়ে মারধর করা হয়।

অভিযোগ, এইভাবে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত তাঁর উপর নির্মম অত্যাচার চালানো হয়৷ তারপর নিজের বাড়িতে আটকে রাখে রঞ্জন দাস। এরপর থেকেই আর খোঁজ পাওয়া যায়নি পিন্টুর। লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১২ তারিখ রঞ্জনকে গ্রেফতার করে দমদম থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন: নামজাদা পরিচালকের হাত ধরে বলিপাড়ায় শাহরুখ কন্যার এন্ট্রি

যদিও ওই দিনই জামিনে ছাড়া পেয়ে যায় রঞ্জন৷ এরপরই এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় রঞ্জন দাস। এখনও পর্যন্ত কোন খোঁজ মেলেনি পিন্টুর। তবে দেড় বছর পুরনো ঘটনায় কেন পিন্টু মণ্ডলকে এতদিন পর মারধর করা হল তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। রঞ্জনের পরিবারের দাবি, দেড় বছর আগে তাদের বাড়ি থেকে টাকা-পয়সা চুরি করেছিল পিন্টু।

Advertisement ---
-----