‘ইমরানকে চিঠি দিয়ে আলোচনার ইঙ্গিত দিয়েছেন মোদী’

ফাইল ছবি

ইসলামাবাদ: পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে চিঠি লিখেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, এমনই দাবি করলেন পাকিস্তানের নয়া বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি৷ তাঁর দাবি অনুযায়ী, দুই দেশের মধ্যে আলোচনায় বসার জন্য এই চিঠি! তবে ভারত সরকারের এই চিঠির বিষয়ে কোনও নিশ্চিত প্রমাণের কথা জানা যায়নি৷

একটি ইংরেজি সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী কুরেশি জানান, মোদী তাঁর এই চিঠিতে দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে আলোচনার বিষয়ে ইঙ্গিত করেছেন৷

কুরেশি তার বিবৃতিতে এও জানান, দুই ভারত-পাকিস্তান দুটি প্রতিবেশী দেশ৷ এই দুই দেশের মধ্যে বেশ কিছু ইস্যু রয়েছে, উভয়পক্ষই তা জানে৷ তাই আলোচনা ছাড়া অন্য কোনও বিকল্প নেই কারও কাছে৷ তিনি আরও জানান, এই ইস্যুগুলি খুবই জটিল৷ আর এগুলির সমাধান করতে গেলে অনেক বাধাবিপত্তির সম্মুখীন হতে হবে৷ তিনি কাশ্মীর প্রসঙ্গও তুলে আনেন৷

- Advertisement -

যদিও প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, পাক মন্ত্রীর এই দাবিকে অস্বীকার করেছে ভারত৷ সেই সঙ্গে এও জানানো হয়েছে, মোদী অভিনন্দন জানাতে এই চিঠি লিখেছেন কিন্তু তাতে আলোচনা বা বৈঠকের কোনও প্রসঙ্গই নেই৷

তবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে পাক বিদেশমন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়েছেন, দুই দেশের মধ্যে সমস্যা রয়েছে৷ এই দুই দেশ শুধু প্রতিবেশীই নয় তারা পারমাণবিক শক্তিও! গত ২৫ জুলাইয়ের নির্বাচনে ইমরান খানের দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও সরকার গঠনের জন্য যথেষ্ট সিট ছিল না তাঁর হাতে।

১৭ অগস্ট জয়ী হয়েই ভারতের জন্য সুসম্পর্কের ইঙ্গিত দেন ইমরান খান৷ জয়ের পরই সাংবাদিক বৈঠকে প্রথমেই কাশ্মীর সমস্যাকে গুরুত্ব দিয়ে তিনি জানান, দ্রুত সমস্যা সমাধানের পথ খুঁজবেন৷ আলোচনাই একমাত্র কাশ্মীর সমস্যার সমাধান, তাই আলোচনায় বসেই সমস্য়া সমাধানের ইঙ্গিত দেন পাকিস্তানের সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷

কাশ্মীরের সমস্যা গুরুতর, তবে সমস্যা সমাধান সম্ভব, বলেন ইমরান৷ দুটি দেশ মুখোমুখি টেবিলে বসলেই একটা পথ বেরোবে বলে উল্লেখ করেন তিনি৷ প্রতিবেশী দেশ হিসেবে ভারত পাকিস্তানের কাছে গুরুত্বপূর্ণ, তাই কোনওভাবেই কাশ্মীর প্রসঙ্গকে কারণ করে দুই দেশ তিক্ততা বয়ে নিয়ে যাবে না বলেও জানান৷

Advertisement ---
---
-----