কাশ্মীরি পড়ুয়াদের কাছে টানতে স্কলারশিপের টোপ পাকিস্তানের

প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: কাশ্মীরি পড়ুয়াদের কাছে টানতে স্কলারশিপকে হাতিয়ার করছে পাকিস্তান৷ উদ্দেশ্য তাদের মনে পাকিস্তানের প্রতি নরম মনোভাব ও উদারতা জাগিয়ে তোলা৷ জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএর তদন্তে উঠে এসেছে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য৷ তদন্তে আরও জানা গিয়েছে, ছাত্র ছাত্রীদের পাকিস্তানের স্কলারশিপ পাইয়ে দেওয়ার জন্য তদ্বির করছেন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা৷

উপত্যকায় সন্ত্রাস তহবিল কেসগুলির তদন্ত করছে এনআইএ৷ সেই কেসের তদন্তে নেমে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে৷ এক তদন্তকারী আধিকারিক জানিয়েছেন, কাশ্মীরের অনের পড়ুয়া স্টুডেন্ট ভিসায় পাকিস্তান যায়৷ সেই সংখ্যা বাড়াতে স্কলারশিপ দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে পাক বিশ্ববিদ্যালয়গুলি৷ দেখা গিয়েছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে স্কলারশিপ পাওয়া ছাত্র ছাত্রীরা কোন জঙ্গির আত্মীয়৷ অথবা বিচ্ছিন্নবাদী নেতাদের পরিচিত৷ সেই সুবাদে তারা স্কলারশিপ পেয়ে যাচ্ছে৷

তদন্তে দাবি করা হয়েছে, দিল্লিতে অবস্থিত পাক হাই কমিশনারের অফিসে কাশ্মীরি পড়ুয়াদের জন্য ভিসার জন্য আবেদন আগের চেয়ে অনেক বেড়ে গিয়েছে৷ এই বিচ্ছিন্নবাদী নেতারা রয়েছেন এর নেপথ্যে৷ কিছু কিছু ক্ষেত্রে হুরিয়ত নেতা সইদ আলি শাহ গিলানিও সুপারিশ করেছেন৷ মামলার যে চার্জশিট আদালতে দাখিল করা হয়েছে তাতে বলা হয়েছে, ভারত অধিকৃত কাশ্মীর থেকে পাকিস্তানে পালিয়ে যাওয়া জঙ্গিদের সেখানকার কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি করাতে মদত করেছেন হুরিয়ত নেতারা৷

- Advertisement -

এনআইএর মতে, স্কলারশিপের বিষয়টি আসলে কিছু জঙ্গি সংগঠন, বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা এবং পাক সরকারের মিলিত আঁতাত৷ কাশ্মীরি পড়ুয়াদের ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার সুযোগ করে দিয়ে পাকিস্তানের প্রতি তাদের মনে উদারতা তৈরি করতে চাইছে৷

বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা নঈম খানের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে পাওয়া কিছু ডকুমেন্ট এই বক্তব্যকে সমর্থন করে৷ সেই ডকুমেন্টে এক কাশ্মীরি পড়ুয়াকে পাকিস্তানের নামি প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুপারিশ করা হয়েছে৷ কারণ তার পরিবার কাশ্মীরের আজাদির জন্য সবসময় হুরিয়তকে সমর্থন জানিয়ে এসেছে৷ এছাড়া আরও কিছু ডকুমেন্ট পাওয়া গিয়েছে যেখান থেকে প্রমাণ হয় হুরিয়ত নেতারা কাশ্মীরি পড়ুয়াদের হয়ে পাক ভিসা দেওয়ার আবেদন জানানো হচ্ছে৷

এনআইএর চার্জশিটে মুম্বই হামলার চক্রী হাফিজ সইদ এবং সইদ সালাউদ্দিন সহ সাত বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতার নাম রয়েছে৷ এছাড়া রয়েছে গিলানির জামাই আলতাফ আহমেদ শাহ৷

Advertisement
---