স্ত্রীদের পাকিস্তানি পুরুষদের থেকে ‘কেড়ে’ নিচ্ছে চিন

ইসলামাবাদ: পাকিস্তানি পুরুষদের কাছ থেকে উইঘুর স্ত্রী’দের ‘কেড়ে’ নিয়েছে চিন৷ এমনটাই অভিযোগ পাক স্বামীদের৷ স্ত্রীদের সঙ্গে দেখা করার অনুমতিও দিচ্ছে না চিনা প্রশাসন৷ এমনকি তাদের সন্তানদের সঙ্গে ফোনেও কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে না।

চিনের কাছ থেকে এমন ব্যবহার পেয়ে মন খারাপ বউহারা পাকিস্তানি পুরুষদের৷ ইসলামাবাদের সব ঋতুর বন্ধু চিনের এই আচরণে ব্যাথিত সেই দেশের সরকারও৷ এই পাকিস্তানি পুরুষরা চিন-পাকিস্তান করিডরের কাছে অবস্থিত চিনের গ্রামে বসবাস করে৷ প্রতি বছর শরৎ ঋতুতে দুর্গম পার্বত্য কারাকোরাম হাইওয়ে পেরিয়ে বালোচ চলে আসে তারা৷ এই সময়টা তারা ফোনেই যোগাযোগ রেখে চলে৷ শীতকালটা দেশে কাটিয়ে ফের স্ত্রী সন্তানদের কাছে ফিরে যান তারা৷

কিন্তু গত বছর থেকে ছবিটা বদলে গিয়েছে৷ স্ত্রী’দের ফোন করেও কোনও উত্তর পাননি তারা৷ একরাশ উদ্বেগ নিয়ে গ্রামে ফিরে গিয়ে তো আরও হতবাক হওয়ার জোগাড়৷ জানতে পারেন তাদের পরিবারের সদস্যদের চিনা সেনা তুলে নিয়ে গিয়েছে৷ চিনা সেনার সঙ্গে যোগাযোগ করার পর তারা জানতে পারেন, স্ত্রী সন্তানদের ‘রিএডুকেশন সেন্টারে’ নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷ সেখানে তাদের ‘ট্রেনিং’ চলছে৷

- Advertisement -

ইকবাল নামে এক পাকিস্তানি ব্যবসায়ী জানিয়েছে, গত বছর মার্চ মাসে আমার স্ত্রী ও সন্তানদের তুলে নিয়ে গিয়েছে চিনা সেনা৷ তারপর থেকে ওদের কোন খোঁজ পাচ্ছি না৷ পরে চিনা সেনার সঙ্গে যোগাযোগ করি৷ ওরা জানায় আমার স্ত্রীকে ট্রেনিং দেওয়া হচ্ছে৷ এবং সরকার আমার সন্তানদের দেখাশুনা করছে৷ সন্তানদের সঙ্গে কথা বলার জন্য ওদের কাছে আকুতি মিনতি করি৷ কিন্তু ওরা বিন্দুমাত্র কর্ণপাত করেনি৷

ইকবালের মতো আরও খান কুড়ি পাকিস্তানির একই অবস্থা৷ এদের প্রতি বছর ব্যবসা অথবা ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কারণে দেশে ফিরে যেতে হয়৷ গতবছর দেশে ফিরে আসার পর থেকে আর স্ত্রী সন্তানদের সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করে উঠতে পারেননি৷

বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন পাকিস্তানও৷ এক পাকিস্তানি রাজনৈতিক নেতা জানিয়েছেন, চিন আমাদের বন্ধু৷ এই ঘটনা পাকিস্তান-চিন সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে৷ জানা গিয়েছে চলতি মাসে চিনের বিদেশমন্ত্রকের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছে ইসলামাবাদ৷

দেশের নিরাপত্তা স্বার্থে চিন উইঘুর স্ত্রী’দের তুলে নিয়ে গিয়েছে৷ দেশে কোনরকমের সন্ত্রাসের আস্তানা গড়তে চায় না বেজিং৷ বিচ্ছিন্নতা মনোভাবকারীদের ‘রিএডুপকেশন সেন্টারে’ নিয়ে পাল্টা মগজ ধোলাই চালানো শুরু করেছে চিন৷ ইকবালের মতো পাকিস্তানি স্বামীদের ধারণা পূর্ব তুকিস্তান ইসলামিক মুভমেন্ট থেকে ফোন ও মেসেজ পাওয়ায় তাদের স্ত্রী’দের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷

এই সংগঠন পাকিস্তানে খুব সক্রিয়৷ এবং পাকিস্তান থেকে এই ধরনের ফোন ও মেসেজ পাওয়াকে দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে বড় সড় বিপদ বলে মনে করে চিন৷ ইকবাল জানিয়েছে দু’বছর আগে চিন তার এক সহকর্মীকে তুলে নিয়ে যায়৷ সেই সময় আমি পাকিস্তানে ছিলাম৷ ওকে জেরা করে জঙ্গিদের বিষয়ে জানতে চায় চিন সেনা৷ ইকবাল আগামী মে মাসে ফের চিন যাবে স্ত্রী ও সন্তানদের খুঁজতে৷ কিন্তু সে নিজেও জানে এতে বিশেষ লাভ হবে না৷ কারণ অর্ধসমাপ্ত কাজ চিন করে না৷

Advertisement ---
---
-----