ভোট মিটলেও তালা ঝুলছে গ্রামপঞ্চায়েত অফিসে

স্টাফ রিপোর্টার, রায়গঞ্জ: পঞ্চায়েত ভোট শেষ হয়েছে বহুদিন হল৷ কিন্তু পঞ্চায়েত নির্বাচনকে ঘিরে উত্তেজনার পারদ এখনও কমেনি৷ কোথাও কোথাও এখনও জ্বলছে পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগুন৷ সঠিক ও সুষ্ঠুভাবে ভোট না হওয়ায় ক্ষোভে পঞ্চায়েত অফিস বন্ধ করে দেয় বিরোধীরা। কিন্তু সেই বন্ধ থাকা পঞ্চায়েত অফিসের তালা ভেঙে খুলতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়ে ব্লক প্রশাসন। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া ব্লকের লক্ষ্মীপুর গ্রামপঞ্চায়েত অফিসে। এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ায় নামানো হয় র‍্যাফ সহ বিশাল পুলিশ বাহিনী।

উল্লেখ্য, পঞ্চায়েত নির্বাচন সঠিক ভাবে না হওয়ায় পঞ্চায়েত নির্বাচন পরবর্তীতে রাজনৈতিক সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বহু এলাকা৷ এদিকে নির্বাচনের পর থেকেই বন্ধ হয়ে রয়েছে উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া ব্লকের লক্ষ্মীপুর গ্রাম-পঞ্চায়েত অফিস। পঞ্চায়েত অফিস বন্ধ থাকায় পঞ্চায়েত কর্মী, সদস্যরা কাজে যোগও দিতে পারে না৷ ফলত ব্যাহত হয় গ্রাম-পঞ্চায়েত পরিষেবা। রাজ্যের শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, নির্বাচনে হেরে গিয়ে কংগ্রেস কর্মীরা পঞ্চায়েত অফিসে তালা লাগিয়ে দেয়৷ পাশাপাশি পঞ্চায়েত অফিসে ঢুকতেও বাঁধা দিতে থাকে তারা।

- Advertisement -

অভিযোগ, মঙ্গলবার ব্লক প্রশাসন থেকে পঞ্চায়েত অফিস খুলতে আসলে মহিলাদের দিয়ে বিক্ষোভ দেখায় কংগ্রেস। এই প্রসঙ্গে পাল্টা কংগ্রেসের অভিযোগ, পঞ্চায়েত ভোট সন্ত্রাস করে করেছে শাসকদল। বিরোধীদের ভোট দিতেই দেওয়া হয়নি। ভোট গণনার দিন বিরোধীদের গণনা কেন্দ্রে ঢুকতেই দেয়নি শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। আর তাদের মদত দিয়েছে পুলিশ ও প্রশাসন। এই নিয়ে হাইকোর্টে মামলাও দায়ের করা হয়েছে। বলপূর্বক পঞ্চায়েতের ক্ষমতা দখল করেছে তৃণমূল৷ তাই এলাকার সাধারণ মানুষ বিক্ষোভ দেখিয়ে চলেছেন।

প্রসঙ্গত, বিক্ষোভকারীদের দাবি, লক্ষ্মীপুর গ্রাম-পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে আদালতে মামলা করেছেন তাঁরা৷ সেই মামলার রায় না বের হওয়া পর্যন্ত পঞ্চায়েত অফিস খুলতে দেবেন না। এদিন লক্ষ্মীপুর গ্রাম-পঞ্চায়েত খোলাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। নামানো হয় র‍্যাফ সহ বিশাল পুলিশ বাহিনী। আবার এই ব্যাপারে চোপড়া ব্লকের বিডিও জানিয়েছেন, লক্ষ্মীপুর গ্রাম-পঞ্চায়েত এলাকা স্বাভাবিক করার জন্য সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। গ্রামের মানুষকে পরিষেবা দিতেই লক্ষ্মীপুর গ্রাম-পঞ্চায়েত খোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

Advertisement ---
---
-----