‘একমাত্র তৃণমূলই পারে সাধারণ মানুষের স্বার্থরক্ষা করতে’

স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: একমাত্র তৃণমূলই পারে সাধারণ মানুষের স্বার্থরক্ষা করতে৷ ছুঁয়ে দেখুন৷ কিংবা চোখে মেলে দেখুন৷ যদি উন্নয়ন দেখতে পান, তবেই তৃণমূলকে ভোট দেবেন৷ সারেঙ্গায় ভোটের প্রচারে গিয়ে এমনটাই বললেন বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়৷

বাঁকুড়ার সারেঙ্গার গড়গড়্যায় নির্বাচনী প্রচারে আসেন তৃণমূল নেতা শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়৷ সেখানেই রাজ্য সরকারের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরেন এই মন্ত্রী৷ বলেন, ‘‘এ রাজ্যে কন্যাশ্রী, যুবশ্রীর মতো প্রায় ৫০টি প্রকল্প চালু রয়েছে৷ আপনি আপনার অধিকার বুঝে নিন৷ জেনে রাখুন, সাধারণ মানুষের স্বার্থরক্ষা করতে একটা দলই পারে, তৃণমূল৷’’

আরও পড়ুন: মমতার দলের হয়ে পঞ্চায়েতের প্রচারে বৃহন্নলারা

একসময়ের অশান্ত জঙ্গলমহল প্রসঙ্গ টেনে এদিন শোভনদেব বলেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৃণমূল সরকার একসময়ের অশান্ত জঙ্গলমহলকে শান্ত করেছে৷ জঙ্গলমহলের বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান হয়েছে৷ সকলে দু’টাকা কেজি দরে চাল পাচ্ছেন৷ ২০১১ সালের পর এই জঙ্গলমহলে মানুষকে বেঘোরে প্রাণ দিতে হয় না৷ আর মাথায় রাখবেন আমাদের মুখ্যমন্ত্রী কিন্তু এ বাংলাকে ভাগ হতে দেননি৷ দেবেন না৷’’

শুধু উন্নয়নের খতিয়ানই নয়, এদিনের জনসভায় বিরোধীদের একহাত নেন মন্ত্রী৷ শোভনদেব বলেন, ‘‘কেউ কেউ বিভাজনের রাজনীতি করছেন৷ বাংলাকে অশান্ত করতে চাইছেন৷ কিন্তু সাধারণ মানুষের কাছে আমাদের অনুরোধ কোনও প্ররোচনায় পা দেবেন না৷’’

আরও দেখুন:

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নাম না করে বলেন, ‘‘কোথায় গেল আপনার ১৫ লক্ষ টাকা? লোকসভা ভোটের আগে তো বলেছিলেন প্রত্যেক ভারতবাসীর অ্যাকাউন্টে এই টাকা ঢুকবে৷ অথচ ১৫ পয়সাও এতদিনে ঢুকল না৷’’

শোভনদেব বলেন, ‘‘বামেরা ৩৪ বছর বাংলায় ক্ষমতায় থাকল৷ উন্নয়নের ঝুলি ফাঁকাই রইল৷ বিজেপি তো ‘সাম্প্রদায়িক’৷ মানুষের পাশে তৃণমূলই সবসময় থেকেছে৷ থাকবে৷’’ সারেঙ্গা ব্লক তৃণমূলের নির্বাচনী সভায় উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা, যুব নেতা সায়নদীপ মিত্রও৷

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের প্রচারে বাইক মিছিলে সাংসদ সৌগত

----
-----