বাইশ গজে ভাইয়ে ভাইয়ে ‘বিশ্বযুদ্ধ’

মাউন্ট মাউনগানুই: একদিন পর অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে মুখোমুখি ভারত-অস্ট্রেলিয়া৷ বাইশ গজে ছোটদের বিশ্বকাপ ফাইনাল একাধারে ভাইয়ে-ভাইয়ে বিশ্বযুদ্ধও!

ভারতীয় সময় শনিবার সকালে চতুর্থবার বিশ্ব জয়ের লড়াইয়ে নামবে বিরাট-স্মিথদের উত্তরসূরিরা৷ খেতাবের লড়াইয়ে টিম ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে লড়তে দেখা যাবে এক ভারতীয়কে৷ নীল জার্সির পৃথ্বীদের বিরুদ্ধে হলুদ জার্সিতে সমুখসমরে নামবেন ছত্তিশগড়ের পরম উপ্পল৷

জন্মসুত্রে ভারতীয় হলেও পড়াশুনা ও বেড়ে ওঠা অস্ট্রেলিয়ায়৷ তাই বাইশ গজে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে প্রতিনিধিত্ব করছেন বছর আঠারোর উপ্পল৷ ছেলের সমর্থনে দেশের বিরুদ্ধে গলা ফাটাবেন দাভিন্দার৷ ফাইনালে প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া না-হলে অবশ্য তেরঙ্গার সমর্থনেই গলা ফাটাতেন সিডনির এই ভারতীয় আইনজীবী৷

- Advertisement -

আরও পডু়ন-বারুদ গন্ধ নয় মনজুরের IPL জ্যাকপটে উৎসব কাশ্মীরে

অনূর্ধ্ব-১৬ থেকেই অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে খেলছেন ছত্তিশগড়ের উপ্পল৷ শনির সকালেও ভারতের বিরুদ্ধে বিশ্বজয়ের লক্ষ্য নিয়ে নামবেন এই তরুণ ক্রিকেটার৷ সেমিফাইনালে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ব্যাট হাতে অপরাজিত ৩২ এবং ৩ ওভার হাত ঘুরিয়ে খরচ করেছেন মাত্র ১২ রান৷ অল-রাউন্ড পারফর্ম করে নজর কেড়েছেন অজি অল-রাউন্ডার৷ ভারতের বিরুদ্ধে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে আট ওভার হাত ঘুরিয়ে ৩৫ রান দিয়ে একটি উইকেট নিয়েছিলেন উপ্পল৷
ভারতের হয়ে শনিবার বে ওভালে বিশ্বকাপ ফাইনালে অর্শদীপ সিং খেললে বাইশ গজে ভাইয়ে ভাইয়ে বিশ্বযুদ্ধ দেখতে চলেছে ক্রিকেটবিশ্ব৷ জন্মসূত্রে ছত্তিশগড়ের উপ্পল খেলছেন অস্ট্রেলিয়ার হয়ে৷ আর ভারতের ডানহাতি মিডিয়াম পেসার অর্শদীপ উঠে এসেছে ছত্তিশগড়ের হয়ে ক্রিকেট খেলে৷ চলতি বিশ্বকাপে গ্রুপে জিম্বাবোয়ে ও পাপুয়া নিউ গিনির বিরুদ্ধে খেলেছেন অর্শদীপ৷ দুই ম্যাচে অর্শদীপের ঝুলিতে সংগ্রহ তিন উইকেট৷

কর্মসূত্রে একসময় ভারত ছেড়ে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে পাড়ি দেয় উপ্পলের পরিবার৷ সেখানে ছেলের ক্রিকেট প্রতিভার আভাস পেয়ে ছেলেকে ক্রিকেট কোচিংয়ে দেন পরমের বাবা দাভিন্দার উপ্পল৷ এরপর ন’বছর বয়সে সিডনির স্থানীয় কেলিভিলে ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে খেলা শুরু করে উপ্পল৷ ১৪ বছর বয়সে সিডনির বর্ষসেরা জুনিয়র ক্রিকেটার নির্বাচিত হন পরম৷

অনূর্ধ্ব-১৬ পর্যায়ে তিনটি অর্ধশতরান রয়েছে অজি অল-রাউন্ডারের৷ গত বছর শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে অভিষেকেই শতরান হাঁকিয়েছিলেন পরমের৷ ২০১৫ ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারত-অস্ট্রেলিয়া সেমিফাইনালে বাবা দাভিন্দার যখন ‘মেন ইন ব্লু’কে সমর্থনে গ্যালারিতে গলা ফাটিয়েছিলেন ছেলে পরম তখন অস্ট্রেলিয়ার হলুদ জার্সি পড়ে মাইকেল ক্লার্কদের জন্য গলা ফাটিয়েছিল৷ এবার অবশ্য ভারত নয়, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে ‘মেন ইন ইয়োলো’-কে সমর্থন করবেন পরমের বাবা দাভিন্দার৷

Advertisement ---
---
-----