লালগড়ের দুর্ঘটনায় মৃত ও আহতদের পরিবারের পাশে পার্থ

স্টাফ রিপোর্টার, মেদিনীপুর: সম্প্রতি লালগড়ের বাস দুর্ঘটনায় মৃতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গেলেন রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। কেউ রোজগেরে না থাকলে মৃতের পরিবারের একজনকে চাকরি দেওয়া হবে এই আশ্বাসও দেন তিনি। সেই সঙ্গে নিহত ও আহতদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য প্রদান করার কথাও বলেছেন তিনি।

এখানেই শেষ নয়৷ মৃতদের পরিবারের ছেলে-মেয়েদের শিক্ষার খরচ সরকার বহন করবে বলেও জানিয়েছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়৷ রবিবার সারাদিন নিহতদের পরিবারদের সঙ্গে ও আহতদের সঙ্গে নিজে কথা বলেন পার্থবাবু। প্রথমে যান গড়বেতার বুড়ামারা গ্রামে। সেখানে গ্রামের মৃত তিন বাসযাত্রীর বাড়িতে যান। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথাও বললেন তিনি।

আরও পড়ুন: ‘কেজরিওয়ালের সংযত হওয়া উচিত’-শীলা দীক্ষিত

- Advertisement -

এরপর চলে আসেন শালবনির বয়লার গ্রামে। বাস দুর্ঘটনায় মৃত আরও দু’জন এই গ্রামের বাসিন্দা। মৃতের পরিবারকে সরকারি সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেন পার্থবাবু। সেখান থেকে বেরিয়ে চলে যান মহারাজপুরে একজন মৃত বাসযাত্রীর পরিবারে৷ সেই পরিবারের সঙ্গে কথা বলে আহতদের দেখতে তিনি যান মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। তাঁদের সঙ্গে কথা বলে চিকিৎসা ক্ষেত্রে সাহায্য ও সুযোগ-সুবিধা প্রদানের নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসনকে।

রবিবার এই বিষয় সাংবাদিকদের সঙ্গেও কথা বলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পার্থবাবু বলেন, “আমি হাসপাতালে এলাম দুর্ঘটনায় আহতদের দেখতে। এখানে প্রায় ৩০ জনের উপর ভরতি রয়েছেন। এক বৃদ্ধা মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন। তাঁরও চিকিৎসা চলছে। অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠছেন। চিকিৎসকরা বলছেন, চিন্তার কোনও কারণ নেই।”

আরও পড়ুন: কলকাতা 24×7 খবরের জের: সাহায্য পেল আরও এক কৃতী

পাশাপাশি দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মুখ্যমন্ত্রীও খবর নিয়েছেন বলে জানান পার্থবাবু। তিনি আরও বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লিতে ছিলেন। তিনি দুর্ঘটনার খবর পেয়েই আমাদের কাজে নেমে পড়ার নির্দেশ দেন। মুখ্যমন্ত্রী নিহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। আহতদের চিকিৎসার ভার সরকারকে বহন করতেও বলেছেন। সেই সঙ্গে আজ সকালের মধ্যে মৃতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করার কথা বলেছেন। আজ সকালেই আমরা মৃতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলাম। তাদের সাহায্যের কথা জানিয়েছি। পরিবারে কেউ রোজগেরে না থাকলে একজনকে চাকরি দেওয়া হবে। ছেলে-মেয়েদের শিক্ষার দায়িত্ব সরকারের। এছাড়া দুর্ঘটনায় মৃত ও আহতদের আর্থিক সাহায্য করা হবে।”

আরও পড়ুন: ‘রাজীব কী সিপাহি’র সঙ্গে জোর যুদ্ধে বিজেপির ‘সাইবার ওয়ার’

প্রসঙ্গত, শনিবার লালগড়ে ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় মৃত ছিল ৫ ৷ আশঙ্কাজনক ছিলেন আরও ১০ জন৷ মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে মনে করা হয়েছিল৷ জানা যায়, ঝিটকার জঙ্গলের কাছে দুর্ঘটনাটি ঘটে৷ শালবনি থেকে বেলপাহাড়ি যাওয়ার পথে ঝিটকার জঙ্গলের রাস্তায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উলটে যায় বাসটি।

ওই বাসে করে প্রায় ১০০ জন যাত্রী বেলপাহাড়িতে আদিবাসী সংগঠনের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন বলে জানা গিয়েছিল। ঝিটকার জঙ্গলের কাছে বাঁক ঘুরতে গিয়ে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। ফলে ঘটনাস্থানেই মৃত্যু হয় পাঁচজনের। আহত হন প্রায় ৪৫ জন। তাঁদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল৷

আরও পড়ুন: মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় প্রাণ খোয়ালেন হেলমেটহীন যুবক

Advertisement
---