তালের রসগোল্লার টানে বাঁকুড়ায় মানুষের ভিড়

তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: তালের রসগোল্লা! হ্যাঁ, ঠিকই শুনেছেন। গত তিন বছর ধরে পাকা তাল দিয়ে তৈরি রসগোল্লাই বিক্রি হচ্ছে বাঁকুড়ার সিমলাপাল স্কুল মোড়ের হরিপদ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারে। একমাত্র জেলার এখানেই মিলবে তালের রসগোল্লা। সম্ভবত রাজ্যের আর কোথাও এই ধরণের অভিনব রসগোল্লা মিলবে না এমনটাই জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

দক্ষিণ বাঁকুড়ায় প্রচুর পরিমাণে তাল গাছ রয়েছে। আর পাকা তাল দিয়ে তৈরি বিভিন্ন ধরণের পিঠে তৈরির কথা সকলেই কম বেশি জানে। বছর তিনেক আগে সিমলাপালের হরিপদ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের কারিগরেরা পরীক্ষামূলক ভাবে তালের রসগোল্লা তৈরির উদ্যোগ নেন। প্রথম বছরেই ব্যাপক সাফল্যের পর এখন ফি বছর তৈরি হচ্ছে এই রসগোল্লা। আর এই রসগোল্লার চাহিদাও রয়েছে ব্যাপক। অভিনব এই মিষ্টির স্বাদ নিতে দূর দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসছেন।

- Advertisement -

কিভাবে এই মিষ্টি তৈরি হয়?
এর উত্তরে হরিপদ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের কর্ণধার নীলয় পাত্র জানান, রসগোল্লা তৈরির মূল উপাদান ছানা৷ আর এই ছানার সঙ্গে পাকা তালের মাড়ি অর্থাৎ ক্কাচ মিশিয়ে এই মিষ্টি তৈরি করা হয়। তালের নিজস্ব স্বাদ আর মিষ্টি গন্ধের জন্যই এই রসগোল্লার গত কয়েক বছরেই ব্যাপক জনপ্রিয় হয়েছে। রথযাত্রা থেকে এই মিষ্টি তৈরির কাজ শুরু হয়। তারপর প্রায় পুজো পর্যন্ত চলতে থাকে। ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। কিন্তু সেইভাবে তিনি যোগান দিতে পারছেন না বলেও জানান।

মিষ্টি প্রিয় বাঙ্গালিকে অভিনব এই রসগোল্লা উপহার দিতে পেরে খুশি বাঁকুড়ার জঙ্গল মহলের এই মিষ্টি ব্যবসায়ীও। সাদা রসগোল্লা হোক বা নলেন গুড়ের রসগোল্লা। সব কিছুকেই ছাপিয়ে এখন বাজারে হিট এই তালের রসগোল্লাই। হালকা হলুদ রঙের এই তালের রসগোল্লার টানেই জেলার গণ্ডী ছাড়িয়ে পাশের জেলা পশ্চিম মেদিনীপুর থেকেও ছুটে আসছেন মানুষ।

পশ্চিম মেদিনীপুরের গড়বেতা থেকে আসা পেশায় শিক্ষক তারকনাথ ভাণ্ডারী জানান, এক আত্মীয়ের মাধ্যমে সিমলাপালের এই দোকানে তালের রসগোল্লার খবর পাই। সেই কারণে তালের রসগোল্লার স্বাদ নিতে এতো দূরে ছুটে আসা। সময় সুযোগ করে পুজোর আগে শুধুমাত্র এই রসগোল্লার জন্য আবারও আসবেন তিনি৷

পাশাপাশি এলাকার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মিড-ডে মিলেও এখন ছাত্র ছাত্রীদের এই রসগোল্লা খাওয়ানোর ব্যবস্থা করেছেন সংশ্লিষ্ট শিক্ষকেরা। এই মুহূর্তে এই রসগোল্লার এতোটাই চাহিদা রয়েছে তা পূরণ করে উঠতে পারছেন না সিমলাপাল হরিপদ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের কারিগরেরা।

সব মিলিয়ে এখন চাহিদার বিচারে সব মিষ্টিকে পিছনে আপন গতিতে এগিয়ে চলেছে সিমলাপালের এই তালের রসগোল্লা। আগামী দিনে রসগোল্লার পাশাপাশি তালের তৈরি সন্দেশ, জিলিপি সহ অন্যান্য মিষ্টি পরীক্ষামূলক ভাবে তৈরি করা হবে বলেও জানান সিমলাপালের হরিপদ মিষ্টান্ন ভাণ্ডারের কারিগরেরা।

Advertisement ---
---
-----