নয়াদিল্লি: ২০১৪-তে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই একাধিকবার বিদেশ সফরে গিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বিপুল খরচ করে তিনি ঘুরছেন দেশে-বিদেশে। এমন অভিযোগ উঠেছে বারবার। কত টাকা খরচ হল, তা জানতে চাওয়া হয়েছে সরকারের কাছে। অবশেষে জানা গেল সেই হিসেব। শুধু বিদেশ সফর নয়, মোদীর প্রজেক্টের জন্য বিজ্ঞাপনে কত খরচ হয়েছে, সামনে এসেছে সেই তথ্যও।

গত সাড়ে চার বছরে ৬৫.৯ বিলিয়ন অর্থাৎ প্রায় সাড়ে ৬ হাজার কোটি টাকা খরচ হয়েছে মোদীর এইসব সফর ও বিজ্ঞাপনে। মোদীর অন্তত ৮৪টা সফরে এই ব্যাপক ব্যয় হয়েছে। বিদেশ সফরে ব্যয়ের পরিমাণ ২৮০ মিলিয়ন বা দু’ হাজার কোটি টাকা। আর বিজ্ঞাপনের জন্য খরচ হয়েছে ৬৪০ মিলিয়ন বা প্রায় ৪ হাজার টাকা।

লোকসভায় এক প্রশ্নের উত্তরে এই খরচের হিসেব দিয়েছেন বিদেশ মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী ভিকে সিং।

বৃহস্পতিবার রাজ্যসভায় প্রশ্নোত্তর পর্বে এই সংক্রান্ত তথ্য চান কেরলের সিপিএম সাংসদ বিনয় বিশ্বম। তিনি জানতে চান, প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর গত সাড়ে চার বছরে মোদী কতগুলি দেশ সফর করেছেন। এই সফরগুলিতে তাঁর সফরসঙ্গী কারা কারা ছিলেন, কী কী চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে এবং এয়ার ইন্ডিয়াকে কত টাকা দিতে হয়েছে এসব তথ্যও চান বিশ্বম।

২০১৪ সালের ২৬ মে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী। বিনয় বিশ্বমের প্রশ্নের উত্তরে আর ভি কে সিংহ হিসেব দিয়েছেন ১৫ জুন, ২০১৪ থেকে ৩ ডিসেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে চার বছরের। সেই তথ্য বলছে, এই সময়ের মধ্যে ৮৪টি দেশ সফর করেছেন মোদী।

‘এনআরআই’ প্রধানমন্ত্রী বলে বিরোধীরা বরাবরই কটাক্ষ করে এসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ২০১৬-র নভেম্বরে নোট বাতিলের ঘোষণার পরই জাপান সফরে চলে যান মোদী। তখন এই সফর নিয়ে তীব্র কটাক্ষ করেন বিরোধীরা। তার মধ্যেই লোকসভা ভোটের আগে মোদীর সফরের এই বিপুল খরচ নিয়ে বিরোধীরা নতুন করে অস্ত্র পেল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক শিবির।

বিতর্ক হয়েছে আরও। আফ্রিকা সফরে গিয়ে সেখানকার একটি গ্রামে ২০০টি দুগ্ধবতী গরু দান করেন নরেন্দ্র মোদী। অথচ ওই অঞ্চলে গোমাংস খাওয়ার প্রচলন আছে। সেটা জানা সত্বেও এইভাবে মোদী গরু দান করলেন কেন, তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

--
----
--