নয়াদিল্লি: নির্বাচিত হওয়ার পরেই সাংবাদিক বৈঠক করে ভারতের সঙ্গে সুসম্পর্কের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন পাকিস্তান তেহরিক ই ইনসাফ (পিটিআই) নেতা ও হবু প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ সেই কথার সূত্র ধরেই হয়তো জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷

শনিবার তিনি আশাপ্রকাশ করে বলেন পাকিস্তানের সঙ্গে এবার সুসম্পর্ক হবে ভারতের৷ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নতি হয়ে সম্পর্কের শৈত্য কিছুটা কাটবে বলে মনে করেন তিনি৷ এরই সাথে মোদী বলেন ইমরান খানের নেতৃত্বে এক নতুন জঙ্গি ও সন্ত্রাস মুক্ত পাকিস্তানের জন্ম হবে বলে মনে করেন তিনি৷

সংবাদ সংস্থা এএনআইকে দেওয়া সাক্ষাতকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন তিনি আশা করেন পাকিস্তান এবার সুস্থ ও স্থায়ী সুসম্পর্কের পথে হাঁটবে৷ দুদেশের সম্পর্কের উন্নতি হবে৷ এর প্রয়োজনে ভারত আরও অনেক বেশি সক্রিয় ও ইতিবাচক ভূমিকা নেবে যদি পাকিস্তান চায়৷

৩০ শে জুলাই ইমরান খানকে নির্বাচনে জয়লাভের জন্য অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ আপাতত যা খবর জানা যাচ্ছে আগামী ১৮ অগস্ট শপথ নিতে চলেছেন ইমরান৷ আর ১৪ অগস্ট পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস৷ পাক সংবাদমাধ্যম জিও টিভি জানাচ্ছে দেশের নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী পদে ইমরান খান বসতে পারেন ১৮ তারিখ৷

তার আগে, পাকিস্তানে ভারতীয় হাই কমিশনার অজয় বিশারিয়ার উদ্যোগে একটি সৌজন্য বৈঠকের আয়োজন করা হয়৷ সেখানে হাজির হন হবু পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ ভারতীয় দূতাবাসের পক্ষ থেকে এই বৈঠককে ইতিবাচক ও গঠনমূলক বলে ব্যাখ্যা করা হয়৷

শুধু বৈঠকই নয়, সাক্ষাত শেষে ইমরান খানকে ভারতীয় ক্রিকেটারদের সই ও শুভেচ্ছা বার্তা সম্বলিত একটি ক্রিকেট ব্যাট উপহার দেন ভারতীয় হাই কমিশনার৷ এই প্রথম কোনও কূটনৈতিক স্তরে সৌজন্য সাক্ষাত হল পাকিস্তান নির্বাচনের পরে ও ইমরান খান নির্বাচিত হওয়ার পরে৷

ইমরান খানের জয়ের জন্য তাঁকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে ভারতীয় দূতাবাসের পক্ষ থেকে৷ দুদেশের সম্পর্কের শৈত্য কাটিয়ে যাতে মানোন্নয়ন ঘটে, সেদিকেই লক্ষ্য রাখা হবে বলে সম্মত হন ইমরান ও অজয় বিশারিয়া৷ পাকিস্তান তেহরিক ই ইনসাফ প্রধান ইমরান খানের সঙ্গে আলোচনায় বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে আসে৷ ভারত পাকিস্তান সম্পর্কের নানা দিক আলোচনায় জায়গা করে নেয়৷

----
--