ছাত্র পরিষদের রাজভবন অভিযান আটকাল পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মোট চার দফা দাবি নিয়ে রাজভবন অভিযানের ডাক দিয়েছিল কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠন৷ সেই ডাকে মঙ্গলবার প্রথমে প্যারাডাইস সিনেমা হলের সামনে জমায়েত করেন ছাত্র পরিষদের প্রায় দু’শো জন সদস্য৷ কিন্তু, রাজভবন অভিযান শুরু হতেই মিছিলটিকে আটকায় পুলিশ৷ সেখান থেকে ৫০-এরও বেশি সদস্যকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ৷ এদিনের অভিযানের মূল দাবি ছিল, তিন বছর আগে ৭ অাগস্ট কৃষ্ণপ্রসাদ জানার হত্যার দ্রুত বিচার৷

আরও পড়ুন: Sale! ৪৪ হাজারের Vivo স্মার্টফোন মাত্র ১৯৪৭ টাকায়

ছাত্র পরিষদের কলকাতা জেলা সভাপতি অর্ঘ্য গণ বলেন, ‘‘তিন বছর আগে ৭ অাগস্ট মেদিনীপুরের সবং কলেজে ছাত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণপ্রসাদ জানাকে কলেজের ভিতরেই তৃণমূলের গুণ্ডাবাহিনী পিটিয়ে খুন করে৷ ঘটনাটি কলেজের সিসিটিভি ফুটেজেও ধরা পড়েছিল৷ কিন্তু, দুর্ভাগ্যবশত ভারতী ঘোষ এসপি পদে থাকাকালীন এই বিষয়ে কোনও রকম তদন্ত করা হয়নি৷ উল্টে, ছাত্র পরিষদের ছাত্র-ছাত্রীদেরই হয়রানির শিকার হতে হয়৷ আজও সেই ঘটনার বিচার হয়নি৷’’ এই ঘটনার বিচারের দাবিকেই হাতিয়ার করে ৭ অাগস্ট রাজভবন অভিযানের ডাক দিয়েছিল ছাত্র পরিষদ৷

- Advertisement -

ছাত্র পরিষদের রাজভবন অভিযানে শামিল হওয়ার জন্য এদিন প্যারাডাইস সিনেমা হলের সামনে জমায়েত করেন ১৭৩ জন৷ সেখান থেকেই রাজভবনের উদ্দেশ্যে রওনা দেন তাঁরা৷ কিন্তু, কিছুটা এগােনোর পরই মিছিলটিকে আটকায় পুলিশ৷ প্রথমে প্রতিবাদকারীদের চলে যেতে বলে পুলিশ৷

কিন্তু, তা মানতে রাজি না হওয়ায় ছাত্র পরিষদের সদস্য ও পুলিশের মধ্যে বচসা শুরু হয়৷ বচসা ধীরে ধীরে পরিণত হয় হাতাহাতিতে৷ পুলিশ ৬১জন মিছিলে অংশগ্রহণকারীকে আটক করে লালবাজারে নিয়ে যায়৷ সেখানে প্রায় দেড় ঘণ্টা আটকে রেখে ছেড়ে দেওয়া হয় ছাত্র পরিষদের সদস্যদের৷ অর্ঘ্য গণ বলেন, ‘‘পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে আমাদের কেউ গুরুতর আহত না হলেও, অনেকেরই হাত-পা কেটে গিয়েছে’’

আরও পড়ুন: চিন সফর বাতিল হওয়ায় কবিতা লিখলেন ক্ষুব্ধ মমতা

কৃষ্ণপ্রসাদ জানাকে হত্যার বিচারের পাশাপাশি এদিনের মিছিলে এনডিএ সরকারের পড়ুয়া বিরোধী নীতি এবং বেকারত্বের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো হয়৷ বেকার যুবকদের চাকরি দেওয়ার দাবিও তোলা হয়৷ এ ছাড়া, মালদহের গনি খান ইন্সটিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি কলেজ (জিকেসিআইইটি)-এর আন্দোলনকারী পড়ুয়াদের সুবিচার দেওয়ার দাবিও জানানো হয়েছে ছাত্র পরিষদের এদিনের মিছিলে৷ এই ইন্সটিটিউট থেকে মডিউলার প্যাটার্নে উত্তীর্ণ পড়ুয়াদের সার্টিফিকেট দেওয়া ও ল্যাটারাল এন্ট্রি করে বি-টেকে ভর্তি করার ব্যবস্থার দাবিতে গত ২৩ জুলাই থেকে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে পড়ুয়ারা।

তবে, এদিনের মিছিল পুলিশি হস্তক্ষেপে নির্দিষ্ট গন্তব্যে না পৌঁছতে পারলেও আগামীদিনে নিজেদের দাবি দাওয়া নিয়ে রাজ্যপালের কাছে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন অর্ঘ্য গণ৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা ইতিমধ্যেই রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করার জন্য সময় চেয়েছি৷ উনি সময় দিলেই আমরা ওনার কাছে গিয়ে আমাদের দাবি জানাব৷’’

এদিনের মিছিলে উপস্থিত ছিলেন দু’শোর কাছাকাছি ছাত্র পরিষদের সদস্য৷ সোমবারই প্রায় ৫০ জন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্য কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠনে যোগ দিয়েছেন৷ বিধানভবনেই তাঁদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দিয়েছেন কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা সৌমেন মিত্র ও শুভঙ্কর সরকার৷

Advertisement
-----