স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: আবারও শাসকদলের অভিযুক্তদের আড়াল করার অভিযোগ উঠল পুলিশের বিরুদ্ধে৷ বিজেপির তরফ থেকে এই অভিযোগ আনা হয়েছে৷ তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন চেয়ারপার্সন রেবা কুন্ডু ও তাঁর ছেলেকে লুকোনোর চেষ্টা করছে পুলিশ বলে দাবি করেছে বিজেপি৷

কোচবিহার পুরসভার দুর্নীতির অভিযোগে পুরসভার সাত কর্মীকে গ্রেফতার করে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করছে পুলিশ৷ আজ কোচবিহারে এক দলীয় কর্মসূচিতে এসে এই দাবি করলেন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক প্রতাপ বন্দোপাধ্যায়৷

- Advertisement -

আরও পড়ুন: কানে ফোন, বারাকপুরে বাতিল হল শতাধিক চালকের লাইসেন্স

আজ কোচবিহারের সুকান্ত মঞ্চে দলের বিভিন্ন শক্তিকেন্দ্র, মন্ডল সভাপতিদের নিয়ে বৈঠকে প্রধান বক্তা ছিলেন তিনি৷ এদিন তিনি বলেন, “এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন চেয়ারম্যান রেবা কুণ্ডু ও তাঁর ছেলে কাউন্সিলর শুভজিৎ কুন্ডুকে পুলিশ ইচ্ছা করে গ্রেফতার করছে না৷” তাঁর আরও দাবি “এই দু’জন কোথায় আছেন তা ভালই জানেন পুলিশ আধিকারিকরা, তবুও তাঁদের গ্রেফতার করা হচ্ছে না৷”

এইদিনের এই কর্মিসভায় প্রতাপ বন্দোপাধ্যায় ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাজ্য সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি আলি হোসেন, জেলা বিজেপির সভাপতি নিখিল রঞ্জন দে, জেলা সম্পাদক উৎপলকান্তি দেব ও প্রণব পাল, সহ-সভাপতি ব্রজগোবিন্দ বর্মন প্রমুখ৷ এদিন প্রতাপ বন্দোপাধ্যায় বলেন, “জেলা জুড়ে বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা হচ্ছে, পুলিশ প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করছে৷” তাঁর দাবি, “বিজেপি কর্মীরাও আর বসে নেই, বিভিন্ন স্থানে তাঁদের ক্ষমতা মতো আক্রমণ প্রতিহত করছেন তাঁরা৷”

আরও পড়ুন: মৌমাছির শব্দে এবার বাঁচবে হাতি

আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনে এই জেলায় বিজেপি ভালো ফল করবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেছেন৷ তৃণমূল কংগ্রেস যদি ইঁট ছোড়ে, তার বদলে বিজেপি কর্মীদের পাটকেল দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন৷ প্রতাপ বন্দোপাধ্যায় বলেন “তৃণমূল কংগ্রেসের শেষ ঘণ্টা কোচবিহার থেকেই বাজতে চলেছে, আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনেই তার প্রমাণ পাওয়া যাবে৷”

----