রেল-প্রতারণায় মুকুল-যোগ খতিয়ে দেখবে পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: জামাইবাবুর প্রভাবেই কি শ্যালক খুলেছিলেন প্রতারণা চক্রের ফাঁদ? সেই চক্রের মূল মাথা কি জামাইবাবু নিজে?সৃজন রায়কে গ্রেফতারের পর থেকে আপাতত এই প্রশ্নগুলিরই উত্তর খুঁজছে উত্তর ২৪ পরগনার বীজপুর থানার পুলিশ৷ শুক্রবার গভীর রাতে নয়াদিল্লি বিমানবন্দর থেকে তাকে গ্রেফতার করেন তদন্তকারীরা৷

সেই খবর প্রকাশ্যে আসতেই সবাই জেনে গিয়েছেন সৃজন আসলে মুকুল রায়ের শ্যালক৷ শনিবার তাঁকে বারাকপুর আদালতে পেশ করে পুলিশ৷ তখন আদালতের বাইরে সৃজন রায়ের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখান প্রতারিতরা৷

তাঁদের দাবি, নিজেকে মুকুল রায়ের ছায়াসঙ্গী বলে পরিচয় দিতেন সাজাদা (সৃজন রায়ের ডাকনাম)৷ মুকুল রায় রেলমন্ত্রী থাকাকালীনই রেলে চাকরি দেওয়ার নাম করে সৃজন রায় ডাকা নিয়েছিল বলে অভিযোগ৷ তাই পুলিশও এখন এই প্রতারণা মামলায় যোগসূত্র খোঁজার চেষ্টা করছে সৃজন রায় ও মুকুল রায়ের মধ্যে৷

- Advertisement -

এদিন বীজপুর থানার পুলিশ মুকুল রায়কে আদালতে পেশ করে৷ তবে সৃজনের বিরুদ্ধে উত্তর ২৪ পরগনার আরও একাধিক থানায় প্রতারণার অভিযোগ দায়ের হয়েছে৷ ফলে সেই সব থানায় তাকে হেফাজতে নিতে চাইবে৷
যদিও এদিন বিচারক সৃজনকে ১২ দিনের জন্য পুলিশি হেফাজতে পাঠিয়েছে৷ পুলিশ এ নিয়ে মুখ না খুললেও তবে সূত্রের খবর, এর সঙ্গে মুকুল রায়ের যোগাযোগ রয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

Advertisement ---
---
-----