প্রদ্যুম্নকে খুনের কথা স্বীকার অভিযুক্তের, দাবি সিবিআইয়ের

চন্ডীগড়: রায়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র প্রদ্যুম্নকে খুনের অভিযোগে বুধবার সেই স্কুলের একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রকে গ্রেফতার করেছিল সিবিআই৷ এবার জেরায় সে প্রদ্যুম্নকে খুনের কথা স্বীকারও করেছে৷ এদিন জুভেনাইল কোর্টে এমনটাই জানিয়েছে সিবিআই৷

গত ৮ই সেপ্টেম্বর গুরুগ্রামের রায়ার ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শৌচালয়ে নলি কাটা অবস্থায় উদ্ধার হয়েছিল প্রদ্যুম্নের মৃতদেহ৷ সেই ঘটনায় হরিয়ানা পুলিশ স্কুল বাস কন্ডাক্টরকে গ্রেফতার করেছিল৷ তার বিরুদ্ধে প্রদ্যুম্নকে যৌন হেনস্থার অভিযোগ উঠেছিল৷ কিন্তু সিবিআই তদন্তের দায়িত্বভার নিতেই ঘটনা অন্যদিকে মোড় নেয়৷ বুধবারই প্রদ্যুম্নকে খুনের ঘটনায় একাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রকে গ্রেফতার করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা৷ সেই সঙ্গে যৌন হেনস্থা ও খুনের দায়ে ধৃত বাস কন্ডাক্টরকে ক্লিনচিট দেয় সিবিআই৷ এরপরেই হরিয়ানা পুলিশের তদন্ত নিয়ে উঠতে থাকে প্রশ্ন৷

এদিন অভিযুক্ত নাবালক ছাত্রকে জুভেনাইল কোর্টে তোলা হয়৷ আদালতকে সিবিআই জানিয়েছে, তদন্তে নেমে প্রথমে সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হয়৷ সেই ফুটেজে অভিযুক্ত সহ বেশ কয়েকজন ছাত্র ছাত্রীকে অপরাধস্থলের আশেপাশে ঘোরাফেরা করতে দেখা গিয়েছে৷ এরপর শুরু হয় জেরা পর্ব৷ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকা ও কর্মীদের সঙ্গে কথা বলার পর একাদশ শ্রেণির ওই ছাত্রকে শেষ পর্যন্ত জালে তোলে সিবিআই৷ অভিযুক্ত নাবালক তার বাবার সামনে নিজের অপরাধ কবুল করেছে৷ আদালতকে এমনটাই জানিয়েছে তদন্তকারী দল৷ এদিন অভিযুক্তের ছ’দিনের পুলিশ হেফাজতের আবেদন করে সিবিআই৷ কিন্তু আদালত তিনদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে৷ সেই সঙ্গে ওই নাবালককে সকাল দশটা থেকে বিকেল পাঁচটা অবধি জেরা করা হবে বলে জানায় আদালত৷

এদিকে প্রদ্যুম্নের পরিবারের তরফ থেকে অভিযুক্তকে সাবালক হিসাবে গণ্য করে তার সেই রকম শাস্তিদানের দাবি তুলেছে৷ তাদের আইনজীবী বলেন, অভিযুক্তের বয়স ১৬ থেকে ১৮’র মধ্যে৷ জুভেনাইল বোর্ডের কাছে আবেদন করা হবে যাতে অভিযুক্তকে সাবালক হিসাবে গণ্য করা হোক৷ সেই মতো তাকে যেন চরম শাস্তি দেওয়া হয়৷

-------
----