৪০ কেজি সোনায় সাজবেন হলদিয়ার দশপ্রহরণধারিনী

ফাইল চিত্র৷

হলদিয়া: চল্লিশ কেজি সোনা দিয়ে এবার মায়ের প্রতিমা সাজছে হলদিয়ার এক পুজো মণ্ডপে৷ বুধবার এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে সেই উৎসবেরই ঢাকে কাঠি পড়ে গেল৷ এখন শুধু দিন গোনার অপেক্ষা৷ হলদিয়ার চৈতন্যপুর নবতারা ক্লাব। এবার তাদের পুজো ২৩ বছরে পড়বে৷

আরও পড়ুন: Breaking News: এবার ভাঙা হল বিবেকানন্দর মূর্তি

এবারের থিম ‘আমি সেই মেয়ে’৷ প্রতিমা গায়ে থাকবে ৪০ কেজির সোনার গয়না৷ পুজোর যেহেতু আর খুব বেশিদিন বাকি নেই৷ তাই সবরকম প্রস্তুতিও শুরু করে দিয়েছেন পুজোর উদ্যোক্তারা৷ স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে ইতিমধ্যেই একপ্রস্থ বৈঠক তারা সেরে ফেলেছে৷

- Advertisement -

সুষ্ঠু পরিবেশ ও সুশৃঙ্খলভাবে যাতে পুজোর দিনগুলো কাটে তার জন্য সবরকম পরিকাঠামো রাখছে তারা৷ হলদিয়ার চৈতন্যপুর নবতারা ক্লাব প্রতি বছরই প্রাক শারদ সম্মেলনের আয়োজন করে৷ আসলে এর মাধ্যমেই জানান দেওয়া পুজো এল বলে৷

বুধবার সন্ধ্যায় স্থানীয় এক প্রেক্ষাগৃহে সান্ধ্যকালীন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে পুজোপ্রস্তুতি পর্বের শুভ সূচনা হয়। উপস্থিত ছিলেন হলদিয়া মহকুমা পুলিশ আধিকারিক তন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়, সুতাহাটা থানার ওসি তথা ক্লাবের পুজো কমিটির সভাপতি জলেশ্বর তেওয়ারী, জেলা পরিষদের সদস্য তথা ক্লাব সম্পাদক সোমনাথ ভুইয়্যাঁ-সহ অন্যান্যরা৷

আরও পড়ুন: ‘ডাফলিওয়ালে’র সঙ্গে নাচ! পদ থেকে সরতে হল তৃণমূলের এই নেত্রীকে

সংস্থার সম্পাদক সোমনাথ ভুইয়্যাঁ জানান, ‘‘মফঃস্বলে আমরাই প্রথম থিম পুজো শুরু করি। প্রতি বছর ২০-২৫ লক্ষ টাকা ব্যয় করে পুজো করা হয়৷ এখন তো রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে আমাদের নাম ছড়িয়ে পড়েছে। প্রতিবছর দর্শনার্থীদের নতুন কিছু দেওয়ার চিন্তাভাবনা থাকে আমাদের।’’

সোমনাথবাবু বলেন, ‘‘গত কয়েক বছর ধরে প্রতিমা ও মণ্ডপ দর্শনার্থীদের নজর কেড়েছে। আশা করছি এবারও তার ব্যতীক্রম হবে না। তবে এই প্রথম জেলায় এত বড় প্রতিমা সোনার গয়না দিয়ে সাজবেন। আমাদের আশা মণ্ডপের পাশাপাশি সোনা দিয়ে তৈরি প্রতিমা দেখতেও বহু মানুষ আসবেন৷’’

Advertisement ---
---
-----