নলিন সরকার স্ট্রিটের পুজোয় এবার হস্তশিল্পের সমাহার

ছবি-মিতুল দাস

দেবযানী সরকার, কলকাতা:  বাংলায় ক্রমশ গুরুত্ব হারানো হস্তশিল্পকে শিল্পীর ভাবনার সঙ্গে মিলিয়ে এবার দেবী দুর্গাকে আহ্বান জানাচ্ছে নলিন সরকার স্ট্রিট সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটি৷ এবছর তাদের থিম- ‘আবাহন, বুননে, মননে’৷

জরিশিল্প কিংবা বেতের তৈরি চুপড়ির মতো বাংলার অনেক নিজস্ব শিল্প এখন অবহেলিত৷ এই শিল্পগুলিকেইNALINI-SARKAR-(20) এবার মণ্ডপসজ্জায় তুলে ধরছে উত্তর কলকাতার নলিন সরকার স্ট্রিট সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটি৷ তবে সরাসরি এই শিল্পগুলোকে অনুকরণ না করে অনুসরণ করছে তারা৷

গোটা মণ্ডপ জুড়ে দেখা যাবে জরি ও বেতের চুপড়ির কাজ৷ কিন্তু এগুলো একটাও সত্যিকারের নয়৷ বাঁশের কঞ্চির উপর স্ট্রিপ কাগজের কাজ, দূর থেকে তো বটেই, সামনে গিয়ে দেখলেও বোঝার উপায় নেই যে এটা আসলে জরি বা বেতের চুপড়ি৷ এমনকি বাঁশের কঞ্চির উপর এমনভাবে স্ট্রিপ কাগজগুলো লাগানো হয়েছে যে, বাঁশের NALINI-SARKAR-(14)কঞ্চিকেও দর্শনার্থীরা চিনতে পারবেন না৷ নলিন সরকার স্ট্রিটের এবছরের পুজোমণ্ডপ বর্ণময় হয়ে উঠছে শিল্পী পরিমল পালের হাতে৷ মণ্ডপের দেওয়াল ও সিলিং জুড়ে থাকবে মাটি দিয়ে লেখা দুর্গার অষ্টশত নাম৷  এবছর তাঁদের আলোকসজ্জা দর্শনার্থীদের কাছে আর্কষণীয় হয়ে উঠবে বলেই মনে করছেন উদ্যোক্তারা৷ কারণ গোটা মণ্ডপ জুড়েই থাকছে আলো-আঁধারির খেলা৷ পুরো আলোকসজ্জাতেই ব্যবহার করা হচ্ছে এলইডি লাইট৷

 এবছর প্রতিমাতেও অভিনবত্ব এনেছে নলিন সরকার স্ট্রিট সর্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটি৷ কমিটির সভাপতি জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘‘মহিষাসুর বধ করার আগের মূহূর্তটাকে তুলে ধরা হয়েছে৷ এখানে দেখা যাবে মা হাঁটু গেড়ে বসে দুহাত তুলে আছেন এবং শিব মায়ের হাতে ত্রিশুল তুলে দিচ্ছেন৷ পরিবেশ বান্ধব এই মণ্ডপে জুড়ে ধ্বনিত হবে ফোক ও ফিউশনের মেলবন্ধন সুর৷

ছবি-মিতুল দাস