নাবালকদের হাতে অস্ত্র ধরালো বজরং দল

স্টাফ রিপোর্টার, পুরুলিয়া: আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে পুলিশের সামনেই রামনবমীতে বজরং দলের শোভাযাত্রায় নাবালকদেরকেও অস্ত্র হাতে মিছিল করতে দেখা গেল পুরুলিয়ায়। এই শোভাযাত্রায় রবিবার অস্ত্র হাতে পুরুলিয়া সদর থানার সামনে চলল খেলা দেখানোও।

একদিকে অস্ত্রের ঝনঝনানি, অন্যদিকে কান ঝালাফালা করা ডিজের ব্যবহারে একের পর এক বিধি ভাঙলেন রাম ভক্তরা। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন কার্যত চুপ করে রইল বলে অভিযোগ।

আরও পড়ুন: কয়েক হাজার রামভক্তের মিছিল দেখল রায়গঞ্জ

- Advertisement -

তবে রামনবমীর ডিউটি করতে এসে সেই সব ছবির নানা মুহূর্ত নিজের মোবাইল ক্যামেরায় বন্দি করতে ভোলেনি পুলিশ। যদিও জেলাশাসক অলকেশপ্রসাদ রায় এদিন বিকেলে বলেন, “যেখানে যা নিয়ম ভাঙা হয়েছে সেখানে মামলা রুজু করা হয়েছে।”

এদিন প্রায় গোটা জেলাতেই ছিল অলিখিত বনধ। বলা যায় বেসরকারি বাস জেলায় সেভাবে পথে নামেইনি। হাতে গোনা সরকারি বাস রাস্তায় চোখে পড়ে। ছোট গাড়ি বা লরিকেও সেভাবে দেখা যায়নি। দোকানপাটও ছিল বন্ধ। সকাল থেকে শুধু গোটা জেলা জুড়ে রাম ভক্তদের শোভাযাত্রা চোখে পড়ে।

আরও পড়ুন: উত্তেজনাকে পাথেয় করে শাসক-বিরোধী রামনবমী দেখল সারেঙ্গা

এদিন বেলা এগারোটা নাগাদ পুরুলিয়া শহরের গোশালা মোড়ের হনুমান মন্দির থেকে বজরং দলের শোভাযাত্রা বার হয়। তারপর সমগ্র শহর পরিক্রমা করে ট্যাক্সি স্ট্যান্ডে জমায়েত হয়ে একটি সভা করে তারা। সেই সভা শেষ হতে প্রায় বিকেল হয়। এই শোভাযাত্রায় শামিল হয়েছিলেন বিজেপি নেতারা। সেই সঙ্গে সাধারণ মানুষও। তবে যুবক–যুবতীর সংখ্যা ছিল বেশি।

এমনকী কিশোর–কিশোরীরাও অংশ নেয়। বহু নাবালককে এই শোভাযাত্রায় অস্ত্র হাতে হাঁটতে দেখা যায়। যা নিয়ে আবারও বিতর্ক দানা বাঁধে। কারণ, সম্প্রতি রাজ্যের শিশু অধিকার রক্ষা কমিশন সকল জেলাশাসককে চিঠি দিয়ে জানিয়েছে নাবালকদের হাতে যাতে অস্ত্র না দেওয়া হয়। কারণ, তা আইন বিরুদ্ধ।

আরও পড়ুন: বাস দুর্ঘটনার জেরে অবরোধ উত্তপ্ত সিপাই বাজার

গতবার রাজ্যের একাধিক জেলায় এই ছবি দেখতে পাওয়ার পরই এবার জেলাশাসকদের কে আগে থেকে চিঠি দিয়ে সতর্ক করা হয়। কিন্তু ওই কমিশন সতর্ক করলেও পুরুলিয়ায় কোনও কাজ হয়নি। তবে পুরুলিয়ার মতো প্রান্তিক জেলায় ঝাড়খণ্ড লাগোয়া হলেও অতীতে রামনবমীকে ঘিরে এমন চেহারা ছিল না। নাবালকদের হাতে অস্ত্র নিয়ে শোভাযাত্রা তো দূরের কথা রামনবমী কমিটিগুলির শোভাযাত্রায় এভাবে অস্ত্রের আস্ফালন চোখে পড়ত না।

Advertisement ---
-----