নয়াদিল্লি: ভারতীয় জাতীয় দলে খেলাকালীন পরিচিত ছিলেন ‘দ্য ওয়াল’ নামে৷ ২২ গজের যুদ্ধে ব্যাট হাতে দেওয়াল হয়ে দাঁড়াতেন তিনি৷ তাঁর কোচিংয়ে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতেছে ভারত৷ বিশ্বকাপ জিতে সোমবারই দেশে ফিরেছে ‘বয়েজ ইন ব্লু’৷
বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর কোচ ও ক্রিকেটারদের জন্য পুরস্কার ঘোষণা করে বিসিসিআই৷ পুরস্কার মূল্যের বৈষম্য নিয়ে প্রতিবাদে সোচ্চার হলেন অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী ভারতীয় দলের প্রধান কোচ তথা প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক রাহুল দ্রাবিড়৷

আরও পড়ুন: ‘প্যাড’ হাতে বিরাটকে চ্যালেঞ্জ শাস্ত্রী’র

পুরস্কার ঘোষনা করা হয়েছে বিশ্বকাপ জয়ী অনূর্ধ্ব-১৯ টিমের প্রত্যেক ক্রিকেটার, কোচ ও সাপোর্টিং স্টাফদের জন্য৷ পৃথ্বীদের ম্যাচ জয়ের পর বোর্ডের তরফে কোচ রাহুল দ্রাবিড়কে ৫০ লক্ষ, তাঁর সহকারি ফিল্ডিং কোচ অভয় শর্মা এবং বোলিং কোচ পরশ মামরেকে ২০ লক্ষ টাকা পুরস্কার মূল্য দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হয়৷ আর বিশ্বকাপ জয়ী ক্রিকেটারদের প্রত্যেককে ৩০ লক্ষ টাকা দেওয়ার কথা বলা হয়৷ পুরস্কার মূল্যের এই বৈষম্যে না-খুশ দ্রাবিড়৷

আরও পড়ুন: সোশ্যাল মিডিয়ায় স্যানেটারি প্যাড হাতে সিন্ধু

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী কোচ জানান, ‘এটা সত্যি লজ্জার যে ছেলেদের বিশ্বকাপ জয়ের সমস্ত কৃতিত্ব আমাকে দেওয়া হচ্ছে৷ কিন্তু এটার পেছনে সমস্ত সাপোটিং স্টাফ ও দলের প্রতিটি প্লেয়ারের পরিশ্রম রয়েছে৷ আমি কারও নাম নিতে চাই না কিন্তু এরা প্রত্যেকেই দলের জন্য সবটুকু দিয়েছে৷ আমরা সবাই ছেলেদের বেস্টটা দেওয়ার চেষ্টা করেছি৷ সবার গুরুত্বই সমান৷’

আরও পড়ুন: একাদশ আইপিএলে ফের দেখা যেতে পারে এ দৃশ্য

যদিও বিসিসিআই-এর এই সিদ্ধান্তের পেছনে থাকা এক অফিসার জানান, ‘এটা ভারতের গুরু-শিষ্য পরম্পরার মধ্যে পড়ে৷ গুরু সবসময় শিষ্যদের থেকে বেশি সম্মান ও পুরস্কার পেয়ে থাকেন৷ তবে প্রতিটি সাপোর্টিং-স্টাফেরও যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে৷’
বিসিসিআই-এর তরফে যাই বলা হোক না কেন ২০০৮ ও ২০১২ বিশ্বকাপ জয়ী অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ থাকাকালীন ড্যাভ হোয়াটমোর কিংবা ভরত অরুণ , বিরাট কোহলি কিংবা উন্মুক্ত চাঁদদের থেকে বেশি টাকা পাননি৷

আরও পড়ুন: ‘৭২ ঘন্টায় জীবন পাল্টায়নি’

----
--