রাহুল গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকেও অধরা জোট সিদ্ধান্ত

নয়াদিল্লি: সনিয়া গান্ধীর সঙ্গে আলোচনার পরেই রাজ্যের জোট নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সোমবার প্রদেশ নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকের পর এমনটাই জানালেন কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী। তাই বলা যায়, এদিন রাহুল গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকে জোট নিয়ে সিদ্ধান্ত অধরাই রয়ে গেল। তবে রাহুল গান্ধী সকলের কথা গুরুত্ব দিয়ে শুনেছেন বলে বৈঠকের শেষে জানালেন প্রদেশ সভাপতি অধীর চৌধুরি।

এদিন দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ ১২, তুঘলক লেন থেকে বেরিয়ে অধীর চৌধুরি বলেন, “প্রদেশ নেতৃত্বের কথায় গুরুত্ব দেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন রাহুল গান্ধী।’’ এদিনের বৈঠকে সন্তোষ প্রকাশ করেন প্রদীপ ভট্টাচার্যও। তাঁর কথায়, “ভালো আলোচনা হয়েছে।’’ তবে জোট নিয়ে প্রদেশ নেতারা সকলে একমত নন। অনেক মত রয়েছে। বৈঠকে সকলে নিজেদের মত প্রকাশ করে জানিয়ে প্রদেশ সভাপতি বলেন, রাহুল গান্ধী সকলের কথাই গুরুত্ব সহকারে শুনেছেন। সকলের মত বিবেচনা করে, সনিয়া গান্ধীর সঙ্গে আলোচনার পরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, বিধানসভা নির্বাচনকে ‘পাখির চোখ’ করে রাজ্যে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করার বার্তা দিয়েছিল সিপিএম। প্রদেশ নেতাদের অনেকেই এই বার্তাকে সমর্থন জানিয়েছেন। তবে সকলে এই জোট বার্তার পক্ষে নন। তাই রাজ্যে জোট নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পুরো বিষয়টি ‘হাইকম্যান্ড’কে জানান প্রদেশ কংগ্রেস নেতারা। এর পরিপ্রেক্ষিতেই এদিন সকাল এগারোটা নাগাদ দিল্লিতে নিজ বাসভবনে প্রদেশ নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকে বসেন রাহুল গান্ধী। প্রদেশ সভাপতি অধীর চৌধুরি থেকে শুরু করে প্রদীপ ভট্টাচার্য, বিধায়ক মানস ভুঁইঞা, সোমেন মিত্র এবং সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়, মৌসম বেনজির নূর, দীপা দাসমুন্সিও এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।  রাজ্য থেকে তৃণমূলকে সড়াতে অধীর চৌধুরি বামেদের সঙ্গে জোটের পক্ষে মত প্রকাশ করলেও মানস ভুঁইঞার মত নেতারা জোটের বিপক্ষে মত দেন। বলা যায়, এদিন জোটের বিরুদ্ধে সমর্থনই বেশি ছিল। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে চলা এই বৈঠকে রাহুল গান্ধী সকলের মতামতই গুরুত্ব সহকারে শোনেন। কিন্তু কোনও সিদ্ধান্ত জানাননি। পুরো বিষয়টি কংগ্রেস সভানেত্রী সনিয়া গান্ধীর সঙ্গে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নিতে চান তিনি। তাই আগামী দিনে এই বিষয়ে আবারও বৈঠকে বসার কথা জানিয়েছেন তিনি। সবমিলিয়ে বলা যায়, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস ‘একলা চলো’ পথে হাঁটবে নাকি জোটের পথে যাবে, সিপিএম নাকি তৃণমুলের হাত ধরবে, তা এদিন অস্পষ্টই রয়ে গেল।    

Advertisement
---
-----