‘রাজীব গান্ধী গণপিটুনির জনক’, পোস্টারে ছয়লাপ দিল্লি

নয়াদিল্লি: ‘গলি গলি ম্যায় শোর হ্যায় রাজীব গান্ধী চোর হ্যায়’৷ বোর্ফস কেলেঙ্কারি ফাঁস হওয়ার পর রাজীব গান্ধীর নামে এই পোস্টার অলিতে গলিতে ছেয়ে গিয়েছিল৷ মৃত্যুর দুই দশক পরেও আবার পোস্টার পড়ল প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর নামে৷ সেই পোস্টারগুলিতে রাজীব গান্ধীকে ‘গণপিটুনির জনক’ বলে তকমা দেওয়া হয়েছে৷

দিল্লি বিজেপির মুখপাত্র তাজিন্দর পাল সিং বাগ্গা রাজধানীর রাস্তায় রাজীব গান্ধীর নামে এই পোস্টার ফেলেছেন৷ সেই পোস্টার শেয়ার করেছেন নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে৷ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর ১৯৮৪র শিখ সংঘর্ষ নিয়ে করা মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বাগ্গার এই পোস্টার বলে মনে করা হচ্ছে৷ বিদেশ সফরে গিয়ে শিখ গণহত্যা প্রসঙ্গে রাহুল জানিয়েছিলেন, ওই ঘটনায় দলের কেউ জড়িত নয়৷ কংগ্রেস সভাপতিকে জবাব দিতে বাগ্গার এই পোস্টার৷ যদিও পোস্টারে কোথাও শিখ সংঘর্ষ নিয়ে কিছু বলা নেই৷ কিন্তু ছবি দেখে পরিস্কার শিখ সংঘর্ষ নিয়ে রাহুলকে খোঁচা মারতেই এই পোস্টার৷

অপরদিকে কংগ্রেস তথা রাহুল গান্ধীর অস্বস্তি বাড়িয়ে ৮৪’র শিখ নিধনে কংগ্রেস যোগের কথা মেনে নেন পাঞ্জাবের কংগ্রেসী মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং৷ তিনি জানান, দলের পাঁচ নেতা সেই গণহত্যায় জড়িত ছিল৷ তাদের নামও উল্লেখ করেন তিনি৷ কিন্তু সেই তালিকা থেকে শিখ গণহত্যায় জড়িত অন্যতম প্রধান অভিযুক্ত জগদীশ টাইটলারের নাম বাদ রাখেন পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী৷ এর জেরে অকালি দলের বিরোধীতার মুখেও পড়তে হয় তাঁকে৷

সোমবার পাঞ্জাবের মুখমন্ত্রী বলেন, ‘‘ইন্দিরাজিকে হত্যার পরই শুরু হয় শিখ হত্যা৷ সেই সময় পশ্চিমবঙ্গে ছিলেন রাজীব গান্ধী৷ কিছু কংগ্রেস নেতা ছাড়া এই ঘটনায় দলের কেউ জড়িত ছিল না৷ তারা হলেন সজ্জন কুমার, ধরমদাস শাস্ত্রী, অর্জুন দাস এবং আরও দুই নেতা৷’’

Advertisement
---