মানবতার দেওয়াল গড়ে গরিবদের পাশে দাঁড়াচ্ছে “রং-তুলি”

শেখর দুবে, কলকাতা : একদিকে চলছে বাকদেবী সরস্বতীর আরাধনা। পাশেই রয়েছে মানবতার দেওয়াল। যেখানে জমা হচ্ছে বিভিন্ন বাড়ির অব্যবহৃত কিংবা ছোট হয়ে যাওয়া জামাকাপড়। পুজোর পরেই সেই জামাকাপড় পৌঁছে যাবে জঙ্গলের মাঝে ছোট ছোট গ্রামে বাস করা গরীব শবর, সাঁওতালদের বাড়িতে।

সরস্বতী পুজো উপলক্ষ্যে এমনই অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে ঝাড়গ্রাম জেলার শিলদার “রং-তুলি” নামের একটি অঙ্কন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। ‘রং-তুলি’র সরস্বতীর মন্ডপে ঢোকার মুখেই তৈরি করা হয়েছে মানবতার দেওয়াল। যেখানে আপনিও জমা রাখতে পারেন নিজের অব্যবহৃত জামা কাপড়।

- Advertisement -

ভগীরথ ঘরের হাতে জন্ম নেওয়া শিলদা আর্ট অ্যাকাডেমির বয়স ৩২ বছর। ভগীরথ বাবুর ছেলে সোমনাথের হাতে এসে শিলদা আর্ট অ্যাকাডেমি হয়ে উঠেছে রং-তুলি। যেখানে ৫ থেকে ২৫ বিভিন্ন বয়সী বাচ্চা বাচ্চা ছেলেমেয়েরা রঙের আঁচড় কাটা শিখতে আসে। মানবতার দেওয়ালও ওদের হাতেই গড়া।

কী এই মানবতার দেওয়াল? কিভাবে এল এই ভাবনা? প্রশ্নের উত্তরে সোমনাথ ঘর জানালেন, “জঙ্গলমহল নামে পরিচিত আমাদের এই বেলপাহাড়ি, শিলদা, বিনপুর, লালগড়ের উপজাতি এবং গরীব মানুষদের কথা ভেবেই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি। আমলাশোল পর্ব পেরিয়ে আমরা অনেকটাই এগিয়ে এসেছি। কিন্তু এখনও দারিদ্র্য লেগে রয়েছে জঙ্গলের আনাচে কানাচে। সেটার সঙ্গেই আমাদের যুদ্ধ। এখানে আসা বাচ্চাগুলো আঁকার পাশাপাশি মানুষের পাশে দাঁড়ানোটা শিখুক।”

তিনি আরও বলেন, “বাইরের রাজ্যে আমি এই নিয়ে আরও কাজ করেছি। ছত্তিশগড়ের রাইপুরে কাজ করতে গিয়ে ‘নেকি কী দেওয়াল’ তৈরি করে ওখানে বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের সংগ্রহ করে প্রয়োজন রয়েছে এমন মানুষদের কাছে পৌঁছে দিতাম। এবার এই চেষ্টাই শিলদাতে করলাম।”

তবে শুধু দেওয়াল তুলেই কাজ শেষ হয়ে যায়নি রং-তুলির ছাত্র ছাত্রীদের। শিলদা ও আশেপাশের গ্রামে বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ওরা চেয়ে আনছে পুরনো কাপড় জামা এবং দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহার হয় এমন জিনিস। পুজো শেষে সেগুলো পৌঁছে যাবে জঙ্গলের বুকে থাকা ছোট গ্রামগুলির হতদরিদ্র পরিবারগুলিতে। তবে শুধু মানবতার দেওয়ালই নয়, চমক রয়েছে রং-তুলির পুজোর থিমেও।

দুর্গা থেকে কালী, থিম পুজোর চমক থাকে প্রতিবছর। কলকাতা, দুর্গাপুর, আসানসোলের মতো বাংলার বড় বড় শহরগুলো এবিষয়ে অনেকটাই এগিয়ে। যদিও শহর ছাড়িয়ে মফস্বলেও বড় বাজেটের থিম পুজোর চল শুরু হয়েছে বেশ কয়েকবছর। সরস্বতী সেরকমভাবে দেখতে গেলে অনেকটাই গ্রামের মেয়ে। পাড়ায় পাড়ায় চলে তার আরাধনা।

এবার সেই সরস্বতী পুজোয় থিমের ব্যবহার করে অভিনবত্ব নিয়ে এসেছে শিলদার ‘রং-তুলি’ আর্ট অ্যাকাডেমি। ওদের সরস্বতী পুজোর এবারের থিমে উঠে এসেছে সেলফোনের নেটওয়ার্কের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ার জন্য পাখিদের মারা যাওয়া।