রানিগঞ্জ: নিরাপত্তা তরজায় বাড়ছে উদ্বেগ, কাটছে আতঙ্কের প্রহর

প্রসেনজিৎ চৌধুরী: সকালে Kolkata24x7-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছিলেন রানিগঞ্জের বিধায়ক রুণু দত্ত। জানিয়েছিলেন পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার জন্যই রামনবমীকে ঘিরে গোষ্ঠী সংঘর্ষ ছড়িয়েছিল। বিধায়কের এমন মন্তব্যের পরই বিতর্ক দানা বাধে।

এরপর উত্তেজনার মধ্যেই দিনভর নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন ঘিরে পারস্পরিক দ্বন্দ্বে জড়িয়েছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। বিকেলের পর রানিগঞ্জবাসীর নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত নবান্ন বিশেষ পুলিশ বাহিনী পাঠাচ্ছে বলেই খবর।

জানা গিয়েছে, কলকাতা পুলিশের এই দলটির নেতৃত্বে থাকছেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বিনীত গোয়েল। রানিগঞ্জ পৌঁছে গোষ্ঠী সংঘর্ষ কবলিত এলাকা পরিদর্শন করবে দলটি। স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপত্তা আরও সুনিশ্চিত করা হবে।

- Advertisement -

এদিকে রানিগঞ্জের উত্তপ্ত অবস্থার মাঝেই পার্শ্ববর্তী আসানসোলেও ছড়াচ্ছে বিক্ষিপ্ত হিংসা। বুধবার সংঘর্ষে গুলিও চলেছে। কয়েকটি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার খবর আসছে। জখম হয়েছেন কয়েকজন। বিভিন্ন এলাকায় চলছে পুলিশি টহলদারি।

আসানসোলের জনগণের নিরাপত্তা নিয়ে রাজ্য সরকারের প্রবল সমালোচনা করেছেন স্থানীয় সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়। তাঁর অভিযোগ, প্রশাসন নীরব ভূমিকা নিয়েছে, তাই গোষ্ঠী সংঘর্ষ ছড়াচ্ছে দ্রুত। নিজের সংসদীয় এলাকার পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে কথা বলেন বাবুল। এরপরেই রাজ্য সরকাররে কাছে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করার জন্য অনুরোধ করা হয়। যদিও সেই অনুরোধ ফিরিয়ে দিয়েছে নবান্ন। বলা হয়েছে, রাজ্য পুলিশই নিরাপত্তা দিতে যথেষ্ট।

উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার সূচি থাকায় পরীক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিয়েও চিন্তিত প্রশাসন৷ ভীত পড়ুয়া ও তাদের অভিভাবকরা৷ এসব নিয়েই আরও একটা আতঙ্কের দিন পার করলেন দুই শহরের জনগণ। তাঁদের দাবি, সরকার দ্রুত নিরাপত্তা নিশ্চিত করুক। বিকেল গড়িয়ে রাত নামছে কয়লা শহর রানিগঞ্জ ও শিল্পশহর আসানসোলে। আর এলাকাবাসী পার করছেন উদ্বিগ্ন প্রহর।

Advertisement ---
---
-----