স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে ‘শোভন-বৈশাখী’ এখন বাংলা রাজনীতির সবচেয়ে বড় ‘থ্রিলার’৷ কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং তাঁর স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায় একজন আরেকজনের বিরুদ্ধে খুনের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনেই ক্ষান্ত হননি৷ কোর্টে একে অপরকে দেখে নেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন৷ পাশাপাশি শোভনকে কান ধরে ওঠবোস করানোর দাবিও জানিয়েছেন রত্না৷

বুধবার একটি টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শোভন চট্টোপাধ্যায় অভিযোগ করেন তাঁকে খুন করার জন্য বিষ মাখা কেক পাঠিয়েছিলেন রত্না৷ তাও আবার তারই ছেলেমেয়ের হাত দিয়ে৷ তবে শুধু এখানেই থেমে থাকেননি পদ হারাতে চলা মেয়র৷ তাঁর অভিযোগ বান্ধবী এবং শুভানুধ্যায়ী বৈশাখীকেও সুপারি কিলার দিয়ে খুন করানোর চেষ্টা করা হয়েছে৷ এবং সোজাসুজি না বললেও আকারেও ইঙ্গিতে সেই রত্নাকেই রেখেছেন এর পেছনে৷

গুগল থেকে প্রাপ্ত ছবি ( ফাইল)

শোভনের এই সব অভিযোগ শোনার পর সেই টিভি চ্যানেলেই বিস্ফোরক রত্না বলেন, ‘‘ঘৃণা হয় এই মানুষটার সঙ্গে ২০ বছর ঘর করেছি৷ অনর্গল মিথ্যে কথা বলে চলেছে৷ একটা মেয়ে তার বাবার জন্মদিনে বিষ মাখা কেকে নিয়ে যাবে? বিশ্বাস করতে পারেন এ কথা৷ ওই কেক গাড়ির বনেটে রেখে আমার ছেলেমেয়েরা ভাগ করে খেয়েছিল৷ কই ওদের তো কিছু হয়নি৷ আমি কেমন বিষ মিশিয়েছিলাম! ইঁদুর মারার বিষ নাকি, যাতে মানুষ মরে না৷’’

এরপর রত্নাকে জিজ্ঞেস করা হয় আপনি এর বিরুদ্ধে কী বলবেন? উত্তরে তিনি বলেন, ‘‘আমি যা বলার কোর্টেই বলব৷ ও কালকেই বুজতে পারবে৷ আমি ওর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করব৷ জেতার পর জাজ যদি আমায় টাকা নিতে বলেন৷ আমি ওনাকে বলব আমার টাকা চাই না৷ শুধু আপনি নির্দেশ দিন ও সবার সামনে কান ধরে ওঠ বোস করে নিজের মিথ্যে কথা স্বীকার করুক৷’’

----
--