বন্যাবিধ্বস্ত কেরলে বাড়ির ছেলে, উৎকণ্ঠায় প্রশাসনের দ্বারস্থ বাড়ির লোক

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: পেটের জ্বালা জুড়োতে ভিন রাজ্যে পাড়ি দিয়েছিল সন্তান৷ আশা ছিল ছেলের পাঠানো টাকায় কমবে দারিদ্রের জ্বালা৷ বদলে জুটলো এক রাশ অনিশ্চয়তা৷ বাড়ির ছেলেরা কাজের জন্য বন্যাবিধ্বস্ত কেরলে৷ যোগাযোগ বিছিন্ন৷ ফলে উৎকণ্ঠাই এখন সঙ্গী মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জ,সাগরদীঘি, হরিহরপাড়া, নওদা, বেলডাঙ্গা, রেজিনগর, ডোমকল এলাকার কয়েকশ পরিবারের৷

পিছিয়ে পড়া জেলা মুর্শিদাবাদ৷ জেলায় নেই কর্মসংস্থানের সুযোগ৷ তাই রোজগারের তাগিদেই কেরলে যেতে হয়েছে নবাবের জেলার বর্তমান প্রজন্মের অনেককে৷ সুখ দুঃখে দিন কেটে যাচ্ছিল ভালই৷ কিন্তু বরুণদেবের রোষে পড়েছে দক্ষিণী রাজ্যটি৷ সেখানকার অবস্থা লণ্ডভণ্ড৷ মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে৷ গোটা কেরলই প্রায় জলের তলায়৷ সেখানেই রয়েছে মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জ,সাগরদীঘি, হরিহরপাড়ার বহু যুবক৷

- Advertisement -

প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের জেরে টেলিফোনে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন কেরল৷ দিন পাঁচেক আগে কেউ কেউ ছেলে বা আত্মীয়দের কণ্ঠস্বর শুনতে পেলেও এখন আর সে সুযোগ নেই৷ ফলে প্রিয়জনের জন্য চিন্তাই এখন সঙ্গী বাড়ির লোকেদের৷

ঘরের মানুষগুলো কবে বাড়ি ফিরবে কেউ জানে না৷ আর্তি শুধু ভিন রাজ্যে তারা যেন সুস্থ্য থাকে৷ এই অবস্থায় উৎকণ্ঠাকে সঙ্গী করে কেরলে যাওয়া মানুষগুলোকে ফেরাতে প্রশাসনের দারস্থ হওয়ার চিন্তা করছেন তাদের বাড়ির লোকেরা৷

Advertisement ---
---
-----