পাটনা: মৃত অবস্থায় পাওয়া গেল প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার হরেন্দ্র প্রসাদ ও তাঁর স্ত্রী সাধনাকে৷ নিজেদের বাড়িতেই তাঁদের দেহ উদ্ধার হয়৷ ৮২ বছরের এই প্রাক্তন পুলিশ আধিকারিকের বাড়ি ছিল বিহারের পাটনার বুদ্ধ কলোনীতে৷ বাড়িতে স্বামী স্ত্রী দুজনেই থাকতেন৷

বৃহস্পতিবার সন্ধেবেলা তাদের দেহ উদ্ধার করে পুলিশ৷ তাদের এক মেয়ে ও দুই ছেলে রয়েছে৷ তাঁরা অবশ্য তাঁদের বাবা মায়ের সঙ্গে থাকতেন না৷ তাঁদের খবর দিয়েছে পুলিশ৷ শুক্রবার সকাল থেকে গোটা ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ৷ প্রাথমিকভাবে এটি খুনের ঘটনা বলেই মনে করছে পুলিশ৷ সেই অনুযায়ীই চলছে তদন্ত৷

পুলিশ জানিয়েছে তাঁদের মৃত্যু হয় বৃহস্পতিবার রাত দশটার আশেপাশের কোনও সময়ে৷ পুলিশ আধিকারিকদের বক্তব্য এই খুনের পিছনে একাধিক ব্যক্তির হাত থাকতে পারে৷ এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে প্রাক্তন পুলিশ কমিশনারের গাড়ির চালক, কাজের লোক–সহ মোট চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে৷

এই প্রসঙ্গে পাটনার এসএসপি মনু মহারাজ বলেন আটক ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে৷ বেশ কিছু তথ্য উদ্ধার করতে পেরেছে পুলিশ৷ খুব দ্রুত এই খুনের সমাধান করে ফেলা যাবে বলে আশাবাদী পুলিশ৷

পুলিশ সূত্রে খবর হরেন্দ্র এবং তাঁর স্ত্রী সাধনার মৃতদেহ বাড়ির ড্রইং রুমে পড়েছিল৷ তাঁদের দু’‌জনের শরীরেই একাধিক ক্ষতচিহ্ন মিলেছে৷ এই ক্ষতচিহ্ন দেখেই পুলিশের সন্দেহ যে তাদের খুন করা হয়েছে৷
পাটনার এসএসপি জানান, মৃতদের মাথাতে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাদের দেহ প্রথম দেখতে পান আত্মীয়রা৷ তারপর খবর দেওয়া হয় পুলিশে৷ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে, চিকিৎসকরা তাদের মৃত বলে ঘোষণা করেন৷ দেহদুটির ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

দম্পতির মধ্যে কোনও পারিবারিক বিবাদ ছিল না বলেই প্রতিবেশি সূত্রে খবর৷ এই প্রাক্তন পুলিশ আধিকারিকের দুই ছেলেই থাকেন দিল্লিতে৷ অস্ট্রেলিয়ায় কর্মরত তাঁদের মেয়ে৷

----
--