৪৮ ঘণ্টায় ৬৯ বার ভূমিকম্প! বাড়ছে সুনামির আশঙ্কা

সাক্রামেন্টো: বিশ্বের সবথেকে বেশি ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা ‘রিং অফ ফায়ার’ নামে পরিচিত। প্রশান্ত মহাসাগর ঘিরে থাকা এই অঞ্চলে রয়েছে ৪৫২টি আগ্নেয়গিরি। মাঝে মধ্যেই বড়সড় কম্পন অনুভূত হয় ওই অঞ্চলে। তবে সম্প্রতি, ওই অঞ্চলে, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ৭০ বার কম্পন অনুভূত হয়। আর সেই কম্পনের জেরে ভয় বাড়ছে ক্যালিফোর্নিয়ায়। যে কোনও মুহূত্যে কনও ভয়াবহ ভূমিকম্পে তছনছ হয়ে যেতে পারে সব কিছু।

আরও পড়ুন: ফের ভয়াবহ ভূমিকম্প নাড়িয়ে দেবে এই রাজ্যকে

অগস্ট মাসের ২১-২২ তারিখের মধ্যে মোট ৬৯টি ভূমিকম্প অনুভূত হয় ওই আঞ্চলে। এর মধ্যে ১৬টি বেশ শক্তিশালী। সেই কম্পনের প্রভাব পড়ে ইন্দোনেশিয়া, বলিভিয়া, জাপান, ফিজিতে। তবে আমেরিকার পশ্চিম উপকূলে বিশেষ প্রভাব পড়েনি। রিং অফ ফায়ারের ওই অংশ আসলে দুটি বড় টেকটনিক প্লেটের মিলনস্থল। তাই বছরের পর বছর সেখানে ভয়াবহ কম্পন অনুভূত হয়।

- Advertisement -

আরও পড়ুন: ভূমিকম্পে লণ্ডভণ্ড হতে পারে গঙ্গাপারের জেলা

তবে ওই ৬৯ বারের ভূমিকম্পে আশঙ্কা বেড়েছে ক্যালিফোর্নিয়ায়। সেখানে ৯ মাত্রার ভূমিকম্প হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এমনকী সুনামিও আছড়ে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। গত শতাব্দীতে একাধিকবার ৭ বা তার বেশি মাত্রার ভুমিকম্প হয়েছে ওই অংশে। সানফ্রান্সিসকোতে সবথেকে ভবাবহ ভূমিকম্পটি হয়েছিল ১৯০৬ সালে। যেখানে ৩০০০ লোকের মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন: ৭.১ মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল এই দেশ

সাম্প্রতিক ওই ভূমিকম্পের সিরিজে সবথেকে বেশিবার কেঁপে উঠেছে ফিজি। এক সকালেই সেখানে পরপর পাঁচবার কম্পন অনুভূত হয়েছে। তার আগের রাতে ফিজির একেবারে কাছ ঘেঁষে প্রশান্ত মহাসাগরে ৮.২ মাত্রার ভূমিকম্প হয়। তবে গভীরতা বেশি থাকায় বিশেষ ক্ষতি হয়নি সেখানে। এরপর ৭.৩ মাত্রা ভূমিকম্প হয় ভেনেজুয়েলা ও ত্রিনিদাদে।

আরও পড়ুন: রাহুলের ভবিষ্যদ্বাণী সত্যি করে কি ‘ভূমিকম্প’ হবে?

Advertisement ---
---
-----