জেলায় জেলায় ‘রোড সেফটি উইক’ পালন

স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া ও জলপাইগুড়ি: পথ নিরাপত্তা বিষয়ক ‘সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ’-এর সচেতনতা সপ্তাহে বেআইনি ও অতিরিক্ত পণ্যবাহী গাড়ি ধরতে বিশেষ অভিযান চালালো বাঁকুড়া জেলা প্রশাসন।

খাতড়া মহকুমা এলাকার বিভিন্ন অংশে এই অভিযানে জেলাশাসক ডাঃ উমাশঙ্কর এস ও পুলিশ সুপার সুখেন্দু হীরার নেতৃত্বে ব্যাপক সাফল্য পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন: তৃণমূল-যুব তৃণমূলের কোন্দলে দিনহাটায় পুড়ল বাড়ি

- Advertisement -

এই অভিযানের প্রথম পর্বে সিমলাপালের বিক্রমপুরে একটি অতিরিক্ত বালি বোঝাই গাড়ি আটক করেন তাঁরা। পরে জেলা পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে ওই দলটি সরাসরি সারেঙ্গার বিভিন্ন বালি খাদানে হানা দেয়। সেখানে একটি জেসিবি সহ দুই মহিলাকে আটক করেন তাঁরা।

পরে জেলাশাসক উমাশঙ্কর এস বলেন, ‘‘এই সচেতনতা সপ্তাহ গত ২৩ জুলাই শুরু হয়েছে। চলবে আগামী ৩০ জুলাই পর্যন্ত। সারা জেলা জুড়েই এই ধরনের অভিযান চলছে ও আগামী দিনেও চলবে। বিষ্ণুপুরেই প্রায় ৫০টি এই ধরনের গাড়ি আটক করা হয়েছে৷’’

আরও পড়ুন: পৃথক রাজ্যের দাবিতে ২ অগস্ট উত্তরের জেলাগুলিতে বনধ

তিনি আরও বলেন, ‘‘প্রথম দিনেই প্রায় ৭০টি অতিরিক্ত পণ্য-বোঝাই গাড়ি আটক করা হয়েছে।’’ এই ধরনের অভিযান ধারাবাহিকভাবে চলবে বলেও তিনি জানান। পাশাপাশি, জেলা প্রশাসনের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয়রা। তবে কোনও ভাবে বেআইনি বালি পাচারকারীরা এই অভিযানের খবর যাতে না পায় সেই ব্যাপারে প্রশাসনকে আরও সতর্ক হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ।

অন্যদিকে, ‘‘সেভ ড্রাইভ সেফ লাইফ’’ লক্ষ্যে সচেতনতামূলক একটি ট্যাবলো বের করল জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসন। বুধবার জলপাইগুড়ি জেলাশাসক দফতর থেকে ট্যাবলোটির শুভ সূচনা করেন জেলাশাসক শিল্পা গৌড়ি সারিয়া। জেলাশাসক ও অতিরিক্ত জেলাশাসক মলয় হালদার সবুজ পতাকা দেখিয়ে ট্যাবলোর শুভ যাত্রার সূচনা করেন। লক্ষ্য আগামী দিনে যাতে সর্তক ভাবে গাড়ি চালায় চালকরা৷ ‘নিজে বাঁচুন ও অপরকে বাঁচার সুযোগ করে দিন’ এই ছিল তাঁদের প্রধান বার্তা।

আরও পড়ুন: শুধু ‘ব্লাড মুন’ নয়, শুক্রের আকাশে দেখা যাবে মঙ্গল-জুপিটারও

রাজ্য সরকারের উদ্দেশ্য ‘‘সেভ ড্রাইভ সেভ লাইফ’’-এর প্রচারের মাধ্যমে দুর্ঘটনার সংখ্যা শূন্য শতাংশে নিয়ে আসা। যদিও জেলা প্রশাসনের প্রচার করে অনেকটাই কাজে লেগেছে৷ যার ফল স্বরূপ দুর্ঘটনার পরিসংখ্যাটি অনেকটা কমেছে।

এই দিনের ট্যাবলোর শুভ সূচনা করে এই বার্তাই দেওয়া হল জেলা-প্রশাসনের পক্ষ থেকে। রাজ্যে সরকার থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ২৩ তারিখ থেকে ৩১ তারিখ পর্যন্ত এই এক সপ্তাহ ‘‘রোড সেফটি উইক’’ হিসেবে পালন করা হবে। জেলা-প্রশাসন এই সাত দিন স্পেশাল ড্রাইভ দিয়ে সচেতনতামূলক প্রচার চালাবে৷ এই কারণে এদিন জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ট্যাবলো বের করা হয়৷

আরও পড়ুন: টরোন্টো শ্যুটআউট: হামলার পিছনে হাত ছিল এক পাক যুবকের

শুধু ট্যাবলো নয়, রাস্তাঘাটে চলতে গিয়ে যে সব সিগন্যালের প্রয়োজন সেই সিগন্যালগুলির ব্যবহার কি ভাবে করবেন সেই বিষয়টিও তুলে ধরা হয় ট্যাবলোর মাধ্যমে৷ এদিনের এই ট্যাবলোটি জেলার বিভিন্ন ব্লক ও পুর এলাকায় ঘুরে ঘুরে রোড সেফটির বিষয়ে সচেতনতামূলক প্রচার চালাবে৷ এই প্রচার মূলত মাইকিং ও ব্যানারের মাধ্যমে চলবে। এই প্রচারে জেলাশাসকের অন্যান্য আধিকারিকেরা উপস্থিত ছিলেন।

এই প্রসঙ্গে জলপাইগুড়ি জেলাশাসক শিল্পা গৌড়ি সারিয়া বলেন, ‘‘শুধু ট্যাবলো দিয়ে প্রচার নয়৷ এই সপ্তাহে বিভিন্ন কালচারাল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ‘সেভ ড্রাইভ সেভ লাইফ’-এর বিষয়ে প্রচার চালানো হবে৷ নিজের জীবনের নিরাপত্তার বিষয়টি নিজেকেই বুঝে নিতে হবে। ট্রাফিক পুলিশ সহ অন্যান্যদের এই কর্মসূচিতে সামিল করা হয়েছে। বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষকদের ট্রেনিং দেওয়া হচ্ছে ‘সেভ ড্রাইভ সেফ লাইফ’-এর বিষয়ে। তাঁরা ক্লাসে ক্লাসে গিয়ে ছাত্রছাত্রীদের রাস্তাঘাটে সর্তক ভাবে চলাচলের বিষয়ে বোঝাবেন।’’

আরও পড়ুন: টরোন্টো শ্যুটআউট: হামলার পিছনে হাত ছিল এক পাক যুবকের

অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রীর ‘সেফ ড্রাইভ, সেভ লাইফ প্রকল্পকে ত্বরান্বিত করতে পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে এবার পথে নামল ছাত্রছাত্রীরা। আজ মালদহ কলেজের ছাত্রছাত্রীরা এবং জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শহরের রবীন্দ্র অ্যাভিনিউতে এক কর্মসূচি নেওয়া হয়৷ তাতে যাদের মাথায় হেলমেট রয়েছে তাদের ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানো হয়।

দেখুন ভিডিও:

হেলমেটহীন বাইক চালকদের প্রথমে পুলিশ জরিমানা করে এরপর কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা তাদের হাতে একটি করে হেলমেট তুলে দেন। মালদা কলেজের ছাত্রছাত্রীদের এই অভিনব উদ্যোগে উপস্থিত ছিলেন ইংরেজবাজার পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যান বাবলা সরকার, চেয়ারম্যান নিহার রঞ্জন ঘোষ, মালদা কলেজের অধ্যক্ষ প্রভাস চৌধুরী, কলেজের অধ্যাপক পীযূষ সাহা ও জেলা ট্রাফিক পুলিশের কর্মীরা।

আরও পড়ুন: দ্বিগুণ বেড়ে যাবে জ্বালানির দাম! ভয়ানক পরিস্থিতি তৈরির শঙ্কা

Advertisement ---
---
-----