বিধায়ক খুনে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে আইনি নোটিশ দেবে আরএসএস

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: কৃষ্ণগঞ্জের বিধায়ক খুনের পর সোমবারও থমথমে হাঁসখালি৷ এদিন সেখানে যান যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ প্রায় আধঘন্টা তিনি কথা বলেন নিহত বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাসের পরিবারের সঙ্গে৷ অভিযোগ করেন এই ঘটনার পিছনে রয়েছে আরএসএস-এর হাত৷

শনিবার রাতে সরস্বতী পুজোর উদ্বোধনে গিয়ে আততায়ীদের গুলিতে খুন হন কৃষ্ণগঞ্জের বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস৷ ঘটনার পরপরই জেলা তৃণমূল সভাপতি গৌরাশঙ্কর দত্ত অভিযোগ করেন খুনের সঙ্গে জড়িত রয়েছে বিজেপি৷ নাম করেই তিনি মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন৷ পরে দলের মহাসচিব-ও একই অভিযোগ করেন৷

আরও পড়ুন: অপরাধ করে দিল্লিতে গিয়ে কেউ পার পাবে না: অভিষেক

- Advertisement -

এদিন হাঁসখালিতে গিয়ে অবশ্য অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বিধায়ক খুনে নিশানা করেন আরএসএসের বিরুদ্ধে৷ তিনি বলেন, ‘‘আরএসএস পরিকল্পনা করে এই কাজ করেছে৷ রাজ্যে হিংসার রাজনীতি আমদানী করতেই তাদের এই কাজ৷’’ খুনের দায়ে মূল অভিযুক্ত অভিজিৎ পুন্ডারি আরএসএস করেন বলে দাবি করেন যুব তৃণমূল সভাপতি৷ তাঁর হুঁশিয়ারি প্রশাসন এই কাজ বরদাস্ত করবে না৷ নাম না করে আক্রমণ করেন মুকুল রায়কে৷ তাঁর কথায়, ‘‘অপরাধ করে দিল্লিতে গিয়ে বসে থাকলে পার পাওয়া যাবে না৷’’

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নিশানায় আরএসএস৷ তাঁর মন্তব্যের পরই সরব হয় বিজেপির ধাত্রী সংগঠন৷ আরএসএসের দক্ষিণবঙ্গের এক কার্যকর্তা বলেন, ‘‘দাড়িভিটের ঘটনা থেকে শিক্ষা নেয়নি তৃণমূল৷ গুলিতে দুই ছাত্রের মৃত্যুর পর সেবারও দায়ী করা হয় আরএসএসকে৷ কিন্তু অভিযোগের প্রেক্ষিতে কোনও যুক্তি দিতে পারেনি তারা৷ এবারও এরই খেলায় মেতেছে তৃণমূল৷’’

আরও পড়ুন: ‘ইভিএমে ভোট হলে লন্ডন, আমেরিকাতেও ফুটবে পদ্ম’

দাড়িভিটকাণ্ডে তাদের বিরুদ্ধে আঙুল ওঠায় তৃণমূল মহাসচিবেরব বিরুদ্ধে আইনি নোটিশ পাঠানো হয় আরএসএস-এর পক্ষ থেকে৷ অভিযোগ খণ্ডণে এবারও আইনি পথেই হাঁটার ভাবনাচিন্তা করছে আরএসএস৷ সংগঠনের দক্ষিণবঙ্গের এর কার্যকর্তার কথায়, ‘‘অন্যায়ভাবে অভিযোগ করা হচ্ছে৷ ঘটনার তিন দিনের মাথায় হঠাৎ মনে হল বিধায়ক খুনে দায়ী আরএসএস? অভিযোগের পক্ষে কোনও তথ্য-প্রণাণ দিতে পারেননি৷’’ তাঁর হুশিয়ারি, মিথ্যে অভিযোগের জন্য আইনি নোটিশ পাটানো হবে ডায়মণ্ডহারবারের সাংসদকে৷

সামনেই লোকসভা৷ তার আগে প্রকাশ্যে শাসক দলের বিধায়ক খুন৷ চলছে দোষারোপ, পালটা দোষারোপের পালা৷ এই আবহে এদিন ঘটনার পিছনে আএসএসকে দায়ী করেন যুব তৃণমূল সভাপতি৷ ঘটনার এর বন্ধনীতে ফেলে দেওয়া চেষ্টা করেন বিজেপি ও আরএসএসকে৷ যা রাজ্য রাজনীতিতে গুরুত্ববাহী৷ পালটা আইনী পথে হাঁটার কথা বলেছে আরএসএস৷ ফলে সংগঠনটিও যে এক ইঞ্চি জমি ছাড়তে নারাজ তা তাদের কথা থেকেই স্পষ্ট৷ ফলে লড়াই সেয়ানে সেয়ানে৷