প্রশ্নের মুখে মোদীর স্বপ্নের বুলেট ট্রেন! হবে না তাহলে এই প্রকল্প

মুম্বই: জাপানের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে ভারতে বুলেট ট্রেন চালানোর স্বপ্ন সফল করেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ কিন্তু সেই প্রকল্প নিয়েই আরটিআইয়ের প্রশ্নের মুখে কেন্দ্র৷ মুম্বই থেকে আহমেদাবাদ যাওয়ার সবকটি ট্রেনের সিটই প্রায় ৪০শতাংশ খালি থাকে, জানিয়েছে আরটিআই৷

১৪ সেপ্টেম্বর আমেদাবাদে মুম্বই– আমেদাবাদ বুলেট ট্রেন প্রকল্পের শিলান্যাস করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ২০২২-এর ১৫ অগাস্ট থেকে এই ট্রেন চালু হবে৷ এর আগে ২০২৩ সালের মার্চে বুলেট ট্রেন চালানোর লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোচ্ছিল কেন্দ্র। কিন্তু স্বাধীনতার হীরক জয়ন্তী উপলক্ষ্যে প্রকল্প শেষের মেয়াদ কমানোর সিদ্ধান্ত নেন প্রধানমন্ত্রী। ১৪ সেপ্টেম্বর জাপানি প্রধানমন্ত্রী শিনজ়ো আবে ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী একযোগে প্রকল্পের সূচনার কথা ঘোষণা করেছিলেন।

কিন্তু বুলেট ট্রেন নিয়ে আরটিআইয়ের তদন্তে উঠে এসেছে, মুম্বই থেকে আহমেদাবাদ যাওয়ার জন্য কয়েক কোটি টাকা খরচ কতকে বুলেট ট্রেনের সূচনা করেছিলেন মোদী৷ কিন্তু যেখানে সাধারণ ট্রেনগুলিতেই ট্রেনের মোট আসনের ৪০শতাংশই ফাঁকা যায়, সেখানে কয়েক কোটি টাকা খরচ করে কেন এই বুলেট ট্রেন তৈরি করা যাবে৷ এই সেক্টরে প্রায় ১০কোটি টাকা ক্ষতির সম্মুখীন হয় রেল৷ এই বিষয়টি নিয়ে মুম্বইয়ের এক রেলকর্মী জানিয়েছেন, মোদী সরকার বুলেট ট্রেন প্রজেক্টের জন্য ১লক্ষ কোটি টাকারও বেশি বরাদ্দ করেছে৷ সেক্ষেত্রে বলাই যায়, এই প্রজেক্টটির জন্য যথাযথ পরিকল্পনা না করেই এমন একটি বড় প্রজেক্ট শুরু করেছে৷ যার জেরে ভারতীয় অর্থনীতিই ক্ষতির সম্মুখীন হতে চলেছে৷

- Advertisement -

আহমেদাবাদ থেকে মুম্বইয়ে আসার পথে রয়েছে মোট ৩১টি এক্সপ্রেস ট্রেন৷ এই সমস্ত ট্রেনের মোট আসন সংখ্যা ৭লক্ষ ৬হাজার ৪৪৬টি৷ কিন্তু এরমধ্যে মাত্র ৩লক্ষ ৯৮হাজারটি আসনই শুধুমাত্র বুক হয়৷ সেক্ষেত্রে প্রায় ৪৩হাজার কোটি টাকা আয়ের বদলে রেলের এই সেক্টরে আয় হচ্ছে মাত্র ২৭হাজার কোটি টাকা৷

মুম্বই থেকে আহমেদাবাদ যাওয়ার এই রেলপথে এত ক্ষতির সম্মুখীন হওয়া স্বত্ত্বেও কেন কয়েক কোটি টাকা খরচ করে বুলেট ট্রেনের শিলান্যাস করলেন মোদী সেই নিয়ে উঠছে প্রশ্ন৷

Advertisement ---
-----