রুশ সীমান্তে সুবিশাল ট্যাংক-সেনা সাজাচ্ছে আমেরিকা, পালটা যুদ্ধের প্রস্তুতি রাশিয়ার

মস্কো:  দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর প্রথমবার মার্কিন সামরিক জোট ন্যাটো পোল্যান্ডে মার্কিন ট্যাংক ও সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। পোল্যান্ডে মার্কিন ট্যাংক ও কয়েক হাজার সেনা মোতায়েন রীতিমত ক্ষুব্ধ রাশিয়া। যার পালটা হিসাবে মস্কোর কাছে বিমানবিধ্বংসী মিসাইল ও বিমানবাহিনীর সেনা মোতায়েন করেছে। যার ফলে নতুন করে উত্তেজনা বাড়তে চলেছে এই অঞ্চলে।এমনকি, রাশিয়া এবং ন্যাটোর একাধিক এই ধরণের সিদ্ধান্তের ফলে যুদ্ধের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে বলেও মত পোষন করেছেন সামরিক পর্যবেক্ষকরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার কয়েকশ ট্যাংক ও সামরিক সাঁজোয়া গাড়ি নিয়ে তিন হাজার মার্কিন সেনার পোল্যান্ডে পৌঁছে গিয়েছে। ইউরোপে কয়েক দশকের মধ্যে এটাই আমেরিকার বৃহত্তম সামরিক উপস্থিতি। আর তা মোটেই ভালো চোখে দেখছে না রাশিয়া। রীতিমত ন্যাটোর এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তোপ দেগে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেছেন, পোল্যান্ডে মার্কিন সামরিক উপস্থিতি রাশিয়ার স্বার্থ ও নিরাপত্তার জন্য হুমকি।

- Advertisement -

পোল্যান্ডের নিরাপত্তা তথা ইউরোপে রাশিয়ার আধিপত্য কমাতেই এই পদক্ষেপ নিয়েছে ওবামা প্রশাসন। তবে আমেরিকার এই দাবি নাকচ করে দিয়ে দিমিত্রি পেসকভ বলেন, ‘ইউরোপে আমাদের সীমান্তে তৃতীয় কোনও দেশ তাদের সামরিক উপস্থিতি গড়ে তুলছে। এমনকি এটা কোনও ইউরোপীয় দেশও নয়।

শুধু তাই নয়, ইউরোপের মাটিতে এইভাবে আমেরিকার সামরিক উপস্থিতি গোটা ইউরোপের নিরাপত্তা প্রশ্নের মুখে পড়বে বলে মত জানিয়েছেন রাশিয়ার উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যালেক্সেই মেসকভ। ফলে যুদ্ধ নয়, বরং শান্তি বজায় রাখাই শ্রেয় বলে দাবি করেছে রাশিয়া। নচেৎ ভয়ানক আকার ধারণ করতে পারে বলে আমেরিকাকে হুঁশিয়ারি রাশিয়ার।

Advertisement ---
---
-----