রাশিয়ার নয়া অস্ত্রে অন্ধ হবে শত্রুপক্ষ, হারাবে যুদ্ধ চালানোর ক্ষমতাও

মস্কো:  রাশিয়ার যুদ্ধজাহাজে নতুন অস্ত্র বসানো হয়েছে। এটি প্রয়োগে শত্রুকে সাময়িক ভাবে অন্ধ করে দেওয়া যাবে। আর যার ফলে নিজের অস্ত্র ব্যবহার সক্ষমতা একেবারে হারিয়ে ফেলবে শত্রু। এ ছাড়া, শত্রুর দৃষ্টি বিভ্রম ঘটবে, অবাস্তব জিনিস চোখে দেখতে শুরু করবে। পাশাপাশি শত্রুর শুরু হবে বেদম বমি। ‘নন-লেথাল’ বা ‘অ-মারণাস্ত্র’ শ্রেণির এ অস্ত্রের নাম ‘৫পি-৪২ ফিলিন’ বা ‘ইগল-প্যাঁচা।’ এর প্রয়োগে শত্রু প্রাণে মারা পড়বে না। কিন্তু যুদ্ধের সক্ষমতা হারাবে।

এই অস্ত্র প্রচণ্ড আলোর ঝলকানি সৃষ্টি করবে। ফলে, বিশেষ করে, রাতে লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণে মারাত্মক ভাবে ব্যর্থ হবে শক্র সেনা। অস্ত্রটি নির্মাণ করেছে রাশিয়ার রুসেলইলেক্ট্রনিকস নামের সংস্থা।

সাজানো সেনাদের ওপর এই অস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়ে দেখা গিয়েছে তারা লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণ করতে পারছেন না। পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ৪৫ শতাংশ সেনা-জওয়ান জানাচ্ছেন, তাদের মধ্যে মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাবের উপসর্গ দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি মন সংযোগ বা ঠাণ্ডা মাথায় চিন্তা করার সক্ষমতা হারিয়েছেন। আর ২০ শতাংশ জানিয়েছেন, তাদের দৃষ্টিবিভ্রম ঘটছে এবং চোখের সামনে উজ্জ্বল আলোর গোলককে ছোটাছুটি করতে দেখেছেন। অবশ্য, পরীক্ষায় কতজন সেনা জওয়ান অংশ নিয়েছিলেন সে তথ্য জানানো হয় নি।

ফিলিন ব্যবহারের মধ্য দিয়ে ‘নাইট ভিশন’ বা ‘নিশি নয়ন প্রযুক্তি’ পুরো অকেজো করে দেওয়া গিয়েছে। একই সঙ্গে ট্যাংক বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্রের লক্ষ্যবস্তু নির্ণয় পদ্ধতিও অকেজো হয়ে গিয়েছে। অকেজো হয়ে গেছে দূরত্ব নির্ণয়ের কাজে ব্যবহৃত সেন্সর বা স্পর্শক। রুশ নৌবাহিনীর নর্দার্ন সি ফ্লিটের অত্যাধুনিক রণতরি অ্যাডমিরাল গোরশেকোভ এবং অ্যাডমিরাল কাসাতোনোভে এই অস্ত্র বসানো হয়েছে। এ ছাড়া, বর্তমানে নির্মীয়মাণ আরো দুই রুশ ফ্রিগেটে এ অস্ত্র বসানো হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

---- -----