অসুস্থ স্বামীকে দেখতে পাঁচদিনের প্যারোলে মুক্ত শশীকলা

বেঙ্গালুরু : প্যারোলে মুক্তি পেলেন ভিকে শশীকলা৷ এআইএডিএমকে থেকে বহিষ্কৃত এই নেত্রী ছাড়া পেয়েছেন মাত্র পাঁচদিনের জন্য৷ চেন্নাইয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন শশীকলার স্বামী এম নটরাজন৷তাঁর কিডনি প্রতিস্থাপন হয়েছে৷স্বামীকে দেখার জন্যই তাঁকে কর্নাটকের আদালত পাঁচদিনের প্যারোলে মুক্তি দিয়েছে৷

যদিও এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই এ নিয়ে হইচই পড়ে গিয়েছে৷ কারণ, শশীকলা বরাবরই তামিলনাড়ুতে প্রভাবশালী নেত্রী হিসাবে পরিচিত৷ এআইএডিএমকে নেত্রী প্রয়াত জয়ললিতার সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক, সেই সম্পর্কে ফাটল এবং আবার তা জুড়ে যাওয়ার সাক্ষী গোটা তামিলনাড়ু-সহ দক্ষিণ ভারত৷একই সঙ্গে জয়ললিতার অসুস্থার সময় থেকে শুরু করে মৃত্যুর পর তিনি যেভাবে দলের নিয়ন্ত্রক হয়ে উঠেছিলেন, তা-ও সর্বজনবিদিত৷তার উপর জয়ললিতার মৃত্যু পরবর্তী সময়ে তামিলনাড়ুতে রাজনৈতিক সংকট এখনও কাটেনি৷ সেই সময় শশীকলা জেলের বাইরে আসায়, তামিলনাড়ুর রাজনৈতিক সমীকরণে আচমকা নতুন মোড় আসতে পারে বলেও রাজনৈতিক মহলের মত৷

যদিও কোনও বন্দিকে প্যারোলে ছাড়া হলে তাঁর সঙ্গে সর্বদা পুলিশি প্রহরার ব্যবস্থা করা হয়৷পুলিশের নজরদারিতেই সেই বন্দির সময় কাটে৷আর শশীকলা তো হাইপ্রোফাইল বন্দি৷ তাঁর উপর নজরদারির বেষ্টনী স্বাভাবিকভাবে আরও কড়া হবে৷কিন্তু শশীকলার বিরুদ্ধে জেলের মধ্যেই প্রভাব কাটানোর অভিযোগ উঠেছে৷ প্রভাব কাটিয়ে বিলাসবহুল বন্দি-জীবনও তিনি কাটিয়েছেন বলে অভিযোগ ওঠে৷ সেই পরিপ্রেক্ষিতেই বলা যায় আজ, শুক্রবার থেকে পাঁচদিন তামিলনাড়ুর রাজনীতির জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ৷

কারণ, শশীকলা জেনারেল সেক্রেটারি হওয়ার পর এআইএডিএমকে-তে ফাটল ধরেছিল৷ জয়ললিতার প্রয়াণের পর মুখ্যমন্ত্রী হওয়া ও পন্নিরসেলভমকে সরিয়ে দেওয়া হয়৷ মুখ্যমন্ত্রী হন ই পালানিস্বামী৷ দল থেকে সরে গিয়ে নতুন দলও গড়েন পন্নিরসেলভম৷ইতিমধ্যে শশীকলা দুর্নীতির মামলার দায়ে জেলে চলে যান৷ তার পর থেকে দলের নিয়ন্ত্রণ ছিল শশীকলার ভাইপো টিটিভি দিনাকরণের হাতে৷ কিন্তু সম্প্রতি পন্নির ও পালানি শিবির এক হয়ে গিয়েছে৷তার পর শশীকলার সঙ্গে দিনাকরণকেও দল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে৷দিনাকরণ শিবিরের ১৮ বিধায়ককে বহিষ্কার করেছেন তামিলনাড়ু বিধানসভার স্পিকার৷ সেই নির্দেশ বৈধ কি না, তা এখনও মাদ্রাজ হাইকোর্টের বিচারাধীন৷আদালতের রায় দিনাকরণের পক্ষে গেলে তামিলনাড়ু সরকার সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে৷

সেক্ষেত্রে পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে, তাতে এই পাঁচদিনের মধ্যে শশীকলা কলকাঠি নেড়ে যেতে পারেন বলে মনে করছে তামিলনাড়ুর রাজনৈতিক শিবির৷ ফলে সকলেরই নজর এখন সেদিকে৷

Advertisement
----
-----