এখনও অপেক্ষায় জম্মু-কাশ্মীরের সমকামীরা

ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: আরও খানিকটা সময় অপেক্ষা করতে হবে জম্মু-কাশ্মীরকে। ৬ই সেপ্টেম্বর ভারত পেয়েছে আরও একটা স্বাধীনতা দিবস। সুপ্রিম কোর্ট ৩৭৭ ধারাকে অবৈধ বলে ঘোষণা করার পর থেকেই খুশির জোয়ারে ভেসেছেন সমকামী মানুষেরা। এই রায় অনুযায়ী সমকামিতা আর অপরাধ নয়। কিন্তু এই রায়ে দুশ্চিন্তা কাটেনি জম্মু-কাশ্মীরের। তার একটাই কারণ সেখানকার সংবিধান যা ভারতীয় সংবিধান থেকে বেশ খানিকটা আলাদা। ‘রনবীর পেনাল কোড’ই সেখানকার সাংবিধানিক কর্তা।

চিন্তার ভাঁজ কাটেনি কাশ্মীর উপত্যকার মানুষের,যার অন্যতম কারণ ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক কুসংস্কার। যে কারণে সেখানকার সমকামীরা কোনোদিন প্রতিবাদ তো দুরে থাক এ বিষয়ে মুখ খুলতেও সাহস পাননি। সেজন্যই আজ যেখানে ভারতের সমকামীরা উৎসবে মেতেছেন তাদের মুখে-চোখে এখনও আশঙ্কার কালো মেঘ। এই উৎসবে আনন্দ করার সুযোগ তারাও পাবেন তো? এবিষয়ে জম্মু-কাশ্মীরের সমকামী আন্দোলনের একমাত্র প্রতিবাদী মুখ ডাঃ আজাদ আহমেদ বুন্দ বলেন,’সুপ্রিম কোর্টের এই রায় খুবই গুরুত্বপূর্ণ।এই রায়কে হাতিয়ার করে আমরা একটি পিটিশন ফাইল করতে পারবো যাতে আমাদের এখানেও এই রায় লাগু করা হয়’।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে যখন বুন্দ কাশ্মীর বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন স্নাতক ছিলেন, তিনি সমকামীদের নিয়ে কাজ শুরু করেন।প্রথম দিকে কেউ মুখ খুলতে না চাইলেও পরবর্তী সময়ে তিনি অনেককেই পাশে পান। ২০১৭ সালে এবিষয়ে একটি বই প্রকাশ করেন, ‘Hijras of Kashmir- A Marginalized Form of Personhood’।

- Advertisement -

তবে উল্লেখযোগ্যভাবে দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ এবং মেহবুবা মুফতি যাদের যেকোনো জাতীয়স্তরের বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় মুখ খুলতে দেখা যায়, সুপ্রিম কোর্টের রায়ে তাঁরা কার্যত মুখে কুলুপ এঁটেছেন। এবিষয়েও রাজনীতিকদের কটাক্ষ করেছেন বুন্দ। তিনি বলেছেন,রাজনীতিকরা মহিলাদের অধিকার নিয়েই কথা বলতে চান না, তাঁরা কি আর সমকামীদের নিয়ে বলবেন?’তবে হাল ছাড়বে না কাশ্মীর,সমকামী তথা সমপ্রেমীদের জয় হবে সর্বত্র এমনটাই স্বপ্ন দেখছে স্বর্গরাজ্য।

Advertisement ---
---
-----