সুপ্রিম কোর্টে পরের বছর ৩৫এ মামলার শুনানি!

শ্রীনগর: পরিস্থিতি জটিল না হলেও, প্রশ্ন সূচক৷ ৩৫-এ মামলার শুনানি পিছিয়ে পরের বছর করল সুপ্রিম কোর্ট৷ ২০১৯-এর জানুয়ারি মাসে দ্বিতীয় সপ্তাহে মামলার শুনানি৷ আপাতত ১৯ জানুয়ারি শুনানির সম্ভাবনা প্রবল৷ শুনানি পিছিয়ে পড়ায় উপত্যকার পরিস্থিতি আরও জটিল হতে পারে বলে আশঙ্কা বাড়ছে৷ কারণ, সংবিধানে ৩৫-এ ধারার বৈধতা নিয়ে শুনানি ঘিরে বার বার উপত্যকার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়েছে৷ শুনানি পিছিয়ে পড়ার ফলে পরিস্থিতি আবার বেহাল হওয়ার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে৷

আরও পড়ুন: বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা থেকে বেরিয়ে আসার হুমকি ট্রাম্পের

বৃহস্পতি ও শুক্রবার ছিল মামলার শুনানি৷ শুক্রবার সুপ্রিম কোর্ট জানায়, জম্মু-কাশ্মীরে পঞ্চায়েত নির্বাচন শেষ হওয়ার পরই ৩৫-এ মামলার শুনানি শুরু হবে৷ চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে কাশ্মীরে পঞ্চায়েত ভোট শুরু৷ অশান্তি এড়াতে ২০১৯ -এর জানুয়ারি মাসে মামলার শুনানি স্থির হয়েছে৷

- Advertisement -

বৃহস্পতিবার সংবিধানের ৩৫এ ধারার বৈধতা নিয়ে শুনানির প্রতিবাদে কাশ্মীরে বনধ ডাকে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা৷ বৃহস্পতিবার স্তব্ধ থাকে উপত্যকা, থমথমে শ্রীনগরের রাস্তাঘাট ছিল জনমানবশূন্য৷ বন্ধ ছিল শ্রীনগরের রেল পরিষেবা৷ শুক্রবারও জারি বনধ, কাশ্মীর জুড়ে কারফিউ৷ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা জানিয়েছিলেন, ৩৫এ ধারার রক্ষায় ৩০ ও ৩১ অগস্ট দু’দিন কাশ্মীরে বনধ ডাকা হয়েছে৷

আরও পড়ুন: EVM দিয়ে ভোট জালিয়াতির মাস্টারপ্ল্যান করা হয়েছে: বিএনপি

কী বলা হয়েছে ৩৫-এ ধারায়?

– জম্মু-কাশ্মীরের স্থায়ী বাসিন্দা ছাড়া বহিরাগত বা ভারতের অন্য রাজ্যের কেউ এখানে জমিজমা বা স্থাবর সম্পত্তি কিনতে পারবে না

– সরকারি চাকরি পাবারও অধিকার নেই তাঁদের, এমনকি এই রাজ্যের কোনো মহিলা যদি অন্য রাজ্যের কোনো পুরুষকে বিয়ে করেন, তাহলে তিনিও এর আওতায় পড়বেন৷ অর্থাৎ তিনিও এই রাজ্যের বিশেষ সুবিধা হারাবেন৷

এই ধারাকে চ্যালেঞ্জ করে একগুচ্ছ মামলা দায়ের করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে৷ ‘উই দ্য সিটিজেন’ নামে দিল্লির এক এনজিও ২০১৪ সালে প্রথম এই ধারা খারিজ করার আর্জি জানায়৷ তাদের মতে, ১৯৫৪ সালের এই ধারা সংসদে পেশ করা হয়নি৷ এটা তৎকালীন রাষ্ট্রপতির নির্দেশমাত্র৷ সংবিধান সংশোধনও করা হয়নি৷ স্রেফ সংবিধানের পরিশিষ্ট হিসেবে রাখা রয়েছে৷ আপাতত মামলার শুনানির জন্য অপেক্ষার ৪ মাস৷

Advertisement ---
---
-----