সুপ্রিম কোর্টে কাঠুয়া মামলা স্থগিত ৭ মে পর্যন্ত

নয়াদিল্লি: ৭ মে পর্যন্ত কাঠুয়া মামলা স্থগিত করল সুপ্রিম কোর্ট৷ শুক্রবার প্রধান বিচারপতির দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের বেঞ্চ এই মামালটি ৭ মে পর্যন্ত স্থগিত করে দেন৷

আরও পড়ুন: ৮ মাসের শিশুকন্যাকে নিয়ে আত্মহত্যা মায়ের

কাঠুয়া গণধর্ষণ মামলা নিয়ে দুটি পিটিশন ইতিমধ্যে জমা পড়েছে শীর্ষ আদালতে৷ একটি করা হয় আট বছরের শিশুটির বাবার তরফ থেকে৷ পিটিশনে তিনি শীর্ষ আদালতের কাছে মামলাটি জম্মু কাশ্মীরের সেসন কোর্ট থেকে সরিয়ে চন্ডীগড়ে স্থানান্তরিত করার আর্জি জানিয়েছেন৷ তাঁর আশঙ্কা জম্মুতে মামলাটি শান্তিপূর্ণভাবে চলতে দেওয়া হবে না৷ অপরদিকে অভিযুক্তদের তরফেও একটি পিটিশন জমা করা হয়৷ সেখানে এই মামলার তদন্তভার সিবিআইয়ের হাতে তুলে দেওয়ার আবেদন জানানো হয়েছে৷

- Advertisement -

এদিন প্রধানবিচারপতি দীপক মিশ্র, বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় ও বিচারপতি ইন্দু মালহোত্রার বেঞ্চ জানান, ৭ মে এই দুটি পিটিশনের শুনানি হবে৷ তবে মামলায় ত্রুটি বিচ্যুতি ঘটলে এবং এতটুকুও ন্যায্য বিচার না পাওয়ার আভাস পেলেই সেখান থেকে মামলাটি সরিয়ে চন্ডীগড়ে নিয়ে যাওয়া হবে বলে গতকাল সাবধান করে দেয় শীর্ষ আদালত৷

আরও পড়ুন: মদের আসরে মাথা থেঁতলে খুনে রহস্য

গত ১০ জানুয়ারি জম্মু কাশ্মীরের কাঠুয়া থেকে নিখোঁজ হয়ে যায় আট বছরের একটি মেয়ে৷ দশ দিন পর তাকে বাড়ির কাছেই মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়৷ ময়নাতদন্তের পর জানা যায় মেয়েটিকে গণধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে৷ ঘটনার তদন্তে নেমে জম্মু কাশ্মীরের পুলিশ আট জনকে গ্রেফতার করে৷

আরও পড়ুন: মালদহে পণের বলি এক গৃহবধূ

ধৃতদের মধ্যে একজন নাবালকও আছে৷ রাজ্য পুলিশের ক্রাইম ব্রাঞ্চ কাঠুয়া জেলা আদালতে দুটি পৃথক চার্জশিট জমা করে৷ সেই চার্জশিটে বলা হয়েছে মেয়েটিকে অপহরণের পর ড্রাগ দিয়ে আচ্ছন্ন করে একটি মন্দিরের ভেতর একে একে অভিযুক্তরা ধর্ষণ করে৷ আটদিন ধরে এই নির্যাতন চলার পর মেয়েটিকে পাথর দিয়ে মাথা থেঁতলে খুন করে৷ এই ঘটনার পরই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা পকসো আইন সংশোধন করে বারো বছরের নিচে শিশু ধর্ষণের সাজা মৃত্যুদণ্ড করে৷

Advertisement
---