জানেন নিম তেল মাথায় দিলে কী হয়?

চুল পড়ছে? হেয়ার প্যাক থেকে শুরু করে পার্লারে গিয়ে হেয়ার ট্রিটমেন্ট৷, কোন কিছুই বাদ যায়নি৷ কিন্তু, তারপরেও কমেনি হেয়ারফলের সমস্যা৷ আর, এই হেয়ারফলের সঙ্গে অতিরিক্ত মাত্রা যোগ করেছে ড্যানড্রপ৷ যা সমস্যাকে বাড়িয়ে দিয়েছে দ্বিগুণ পরিমানে৷ কিন্তু, সমস্যার দিন শেষ৷ কারণ, আপনার হাতের কাছেই রয়েছে সমাধান৷ একেবারে ঘরোয়াভাবেই সমাধান করুন এই জেদি প্রবলেমের৷

১) নারকেল তেল- কোকোনাট ওয়েলে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল উপাদান যথেষ্ট বেশি পরিমানে থাকে৷ যেটি ড্যানড্রপ তাড়াতে বিশেষ উপযোগী৷ নারকেল তেলকে হালকা গরম করে লেবুর রস মিশিয়ে স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন৷ রেখে দিন৷ ৪৫ মিনিট পরে ভাল করে ধুয়ে নিন৷ প্রয়োজনে কোন মাইল্ড শ্যাম্পুও ব্যবহার করতে পারেন৷

২) সরষের তেল- সরষের তেলেও যথেষ্ট পরিমানে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে৷ ভারতের উত্তরের বাসিন্দারা সৌন্দর্ষ বৃদ্ধির জন্য প্রচুর পরিমানে সরষের তেলের ব্যবহার করে থাকেন৷ হালকা হাতে স্ক্যাল্পে সরষের তেলের ম্যাসাজ ব্লাড সার্কুলেশনকে বাড়ায়৷ এছাড়া, ভাল ফলের জন্য নারকেল এবং সরষের সেলের মিশ্রণ ব্যবহার করতে পারেন৷

৩) অলিভ ওয়েল- রান্নাঘরে অলিভ ওয়েলের জুড়ি মেলা ভার৷ কিন্তু, জানেন কী এই রান্নার সেলই আপনার সৌন্দর্য বাড়াতে পারে অনেকখানি৷ অলিভ ওয়েলে থাকা নানা উপাদান চুলের স্বাস্থ্যের জন্য দারুণ উপযোগী৷ ভাল ফল পেতে দুই চামচ অলিভ ওয়েলের সঙ্গে এক চামচ হলুদ মিশিয়ে নিন৷ স্ক্যাল্পে ম্যাসেজ করে এক ঘন্টা রেখে দিন৷ এরপর, শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন৷ ফল পাবেন একেবারে হাতেনাতে৷

৪) নিম তেল- নিমকে আমরা অনেকেই অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান বলে জানি৷ বিভিন্ন রোগ সারাতেও নিমের জুড়ে মেলা ভার৷ এছাড়া, স্টম্যাক ইনফেকশন এবং ব্লাড পিউরিফাই করতেও সাহায্য করে নিম৷ সেভাবেই সৌন্দর্য বৃদ্ধিতেও কাজে লাগে নিম৷ এক চামচ নিম অয়েলের সঙ্গে এক চামচ নারকেল তেল মিশিয়ে নিন৷ পাঁচ মিনিট ম্যাসাজ করুন৷ ৩০ মিনিট পর চুল ধুয়ে ফেলুন৷ সপ্তাহে ২-৩ বার করুন৷

সময়ের সঙ্গে বেড়েছে দূষণের মাত্রাও৷ ঘরে হোক কিংবা বাইরে, সবত্রই দূষণ৷ রেহাই নেই৷ অনেককে আবার নিত্যদিনের ব্যস্ততার জন্য রাস্তায় বেরোতেই হয়৷ যার ফলে ধীরে ধীরে ড্যামেজ হতে থাকে চুল, ত্বক সবকিছুই৷ আর, তখনই মিনিটে ফল পাওয়ার আশায় দৌড়োন পার্লারে৷ কিন্তু, সেখানেও মেলে না কোন স্থায়ী সমাধান৷ তাই, পার্লার ছাড়ুন৷ এবার ঘরোয়া উপায়গুলিকে ফলো করে রেহাই পেতে পারেন দীর্ঘদিনের সমস্যা থেকে৷

----
-----